গৌরনদীতে চাঁদা না দেয়ায় ব্যবসায়ির দোকান ভাঙচুর!

প্রথম পাতা » বরিশাল » গৌরনদীতে চাঁদা না দেয়ায় ব্যবসায়ির দোকান ভাঙচুর!
শনিবার ● ১৫ জুন ২০২৪


গৌরনদীতে চাঁদা না দেয়ায় ব্যবসায়ির দোকান ভাঙচুর!

গৌরনদী (বরিশাল) সাগরকন্যা প্রতিনিধি॥
দাবিকৃত দশ লাখ টাকা চাঁদা না দেওয়ায় বরিশালের গৌরনদীতে বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মোঃ দিদার উদ্দিন হাওলাদারের দোকানে হামলা চালিয়ে তাকে পিটিয়ে আহত    ও দোকান তালাবদ্ধ করে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে চামচ প্রতীকের মেয়র প্রার্থী মোঃ শফিকুর রহমান রেজাউল শিকদারের বিরুদ্ধে। শুক্রবার রাত পৌণে ৮টার দিকে গৌরনদী পৌরসভার টরকী বন্দরের পেঁয়াজ পট্টিতে এ ঘটনা ঘটে।  এ ঘটনায় ব্যবসায়ী দিদার উদ্দিন বাদি হয়ে রেজাউল শিকদারসহ ৫ জনকে আসামি করে শনিবার দুপুরে গৌরনদী থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছে।
টরকী বন্দরের ব্যবসায়ী ও  দিদারউদ্দিন হাওলাদার জাানান, গৌরনদী উপজেলা ভূমি অফিস থেকে তিনি টরকী বন্দরের পেঁয়াজ পট্রিতে ০.১২৫ ভূমি লিজ নিয়ে মেসার্স তোহা এন্টারপ্রাইজ নামে একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলেন। ওই ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে তিনি এলপি গ্যাস, সার-কীটনাশক ও বিএডিসির বীজের পরিবেশক হিসেবে ব্যবসা করে আসছিলেন। ব্যবসায়ী দিদার উদ্দিন হাওলাদার অভিযোগ করে বলেন, গৌরনদী উপজেলা আওয়ামীলীগের সদস্য ও  গৌরনদী পৌরসভা মেয়র পদে উপ-নির্বাচনে চামচ প্রতীকের মেয়র প্রার্থী রেজাউল শিকদার আমার কাছে সম্প্রতি ১০ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে আসছিলো। চাঁদা দিতে অস্বীকার করায় রেজাউল শিকদার আমার (দিদার) উপর ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেন। দাবিকৃত ১০ লাখ টাকা চাঁদা না দেওয়ায় ক্ষিপ্ত হয়ে রেজাউল শিকদার ও তার ৫/৬জন সহযোগী শুক্রবার দিবাগত রাত পৌণে ৮টার দিকে আমার দোকানে এসে গালাগাল করে হামলা চালায়। এ সময় হামলাকারীরা দোকান ভাঙচুর ও মালামাল তছনছ করে আমাকে পিটিয়ে রক্তাক্ত জখম করে দোকান থেকে আমাকে (দিদার) বের করে দিয়ে দোকান তালাবদ্ধ করে দেয়। গুরুতর আহত অবস্থায় আমাকে উদ্ধার করে স্থানীয়রা গৌরনদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন।
চামচ প্রতীকের মেয়র প্রার্থী মোঃ শফিকুর রহমান রেজাউল শিকদার অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন,  ওয়ারিশ  সূত্রে ওই পৈতৃক দোকান ঘরের প্রকৃত মালিক আমিসহ আমার ভাইরা। ব্যবসায়ী দিদারের কাছ থেকে ১০ লাখ টাকা অগ্রিম নিয়ে আমি ২০১১ সালে ১০ বছরের চুক্তিতে দিদারকে দোকান ঘর ভাড়া দেই। ২০২১ সালে চুক্তির মেয়াদ শেষ হয়ে গেলেও বার বার তাগিদ ও তিনবার উকিল নোটিশ দেওয়ার পরেও দিদার দোকান ঘর ভাড়ার ছুক্তি নবায়ন (নতুন চুক্তি) করছে না এবং গত তিন বছর যাবত দোকান ভাড়া দিচ্ছে না। তাই দোকান থেকে তাকে (দিদার) বের করে দোকান তালাবদ্ধ করে দিয়েছি। চাদা দাবির অভিযোগ সঠিক না।  দোকান ভাড়ার টাকা না দিয়ে দিদার আমার পৈতৃক দোকান ঘর দখল করে মালিকানা নেওয়ার জন্য নানা কৌশল অবলম্বন করে আসছে।
গৌরনদী থানার ওসি আনোয়ার হোসেন অভিযোগ পাওয়ার কথা স্বীকার করে বলেন, লিখিত অভিযোগের তদন্ত করে আইনি  ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
এএসআর/এমআর

বাংলাদেশ সময়: ২১:৪০:১৩ ● ৫৪ বার পঠিত




পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)

আর্কাইভ