করোনায় সতর্কতা পায়রা তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রে ভিড়েছে কয়লাবাহী এমভি বাল্ক বিওথাক

প্রথম পাতা » পায়রা বন্দর » করোনায় সতর্কতা পায়রা তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রে ভিড়েছে কয়লাবাহী এমভি বাল্ক বিওথাক
সোমবার ● ২৩ মার্চ ২০২০


ইন্দোনেশিয়ার বালিকপানান বন্দর থেকে এমভি বাল্ক বিওথাক নামে একটি কয়লাবাহী জাহাজ প্রায় ২২ হাজার ৪০০ মেট্রিক টন কয়লা নিয়ে পায়রা তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রের জেটিতে নোঙর করেছে।

কলাপাড়া সাগরকন্যা অফিস॥
পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় পায়রা তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রে কর্মরত কর্মকর্তা-কর্মচারীরা সতর্ক থেকে কাজ করছেন। এমনকি পায়রা তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রের জন্য বিদেশ থেকে কয়লা নিয়ে যেসব জাহাজ আসছে, সেসব জাহাজের নাবিকসহ শ্রমিকদের জাহাজ থেকে নামার ওপরও নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে। করোনা ভাইরাস পরিস্থিতি মোকাবেলায় এ সতর্কতা গ্রহন করেছে বাংলাদেশ-চায়না পাওয়ার কোম্পানী লিমিটেড (বিসিপিসিএল) কর্তৃপক্ষ।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রের ভিতরে এক হাজার ২০০ চীনা নাগরিক এবং তিন হাজারের বেশি দেশীয় শ্রমিক কাজ করছে। করোনা পরিস্থিতির কারণে তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্র এলাকায় বাইরের দর্শনার্থীর প্রবেশাধিকার নিয়ন্ত্রণ করা হয়েছে। বিদ্যুৎ কেন্দ্রের অভ্যন্তরে যাঁরা কাজ করছে, তাঁদেরকেও বাইরে যেতে নিষেধ করে দেয়া হয়েছে। পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত এমন সিদ্ধান্ত বহাল থাকবে বলেও জানানো হয়।
এদিকে রবিবার দুপুর ১২ টায় ইন্দোনেশিয়ার বালিকপানান বন্দর থেকে এমভি বাল্ক বিওথাক নামে একটি কয়লাবাহী জাহাজ প্রায় ২২ হাজার ৪০০ মেট্রিক টন কয়লা নিয়ে পায়রা তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রের জেটিতে নোঙর করেছে। এ জাহাজে থাকা লোকদের মধ্যে ফিলিপাইনের ১৯ জন, রাশিয়ার ২ জন এবং লেবাননের ১ জন রয়েছে। এসব বিদেশীদের জাহাজ থেকে নামতে নিষেধ করা হয়েছে বলে জানা গেছে।
বাংলাদেশ-চায়না পাওয়ার কোম্পানী লিমিটেডের (বিসিপিসিএল) সহকারী ব্যবস্থাপক শাহ মনি জিকো বলেন, বাংলাদেশের সর্বত্র করোনা ভাইরাস পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বেগ-উৎকন্ঠা থাকলেও পায়রা তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্র এলাকায় এর কোনো প্রভাব পড়েনি। এখানকার সকল ধরণের উন্নয়ন কাজ চলমান রয়েছে। আগামী ৩১ মার্চের মধ্যে প্রথম ইউনিটের ৬৬০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ বাণিজ্যকভাবে জাতীয় গ্রিডে যুক্ত করতে নিরলসভাবে কাজ চলছে বলেও তিনি সাংবাদিকদের জানান।

বাংলাদেশ সময়: ১১:৪১:৪২ ● ৩৬৪ বার পঠিত




পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)

আর্কাইভ