রাষ্ট্রই সবচেয়ে বেশি মানবাধিকার লঙ্ঘন করেছে মেক্সিকোতে

প্রথম পাতা » বিশ্ব » রাষ্ট্রই সবচেয়ে বেশি মানবাধিকার লঙ্ঘন করেছে মেক্সিকোতে
সোমবার ● ২৫ মার্চ ২০১৯


---

সাগরকন্যা আর্ন্তজাতিক ডেস্ক॥

মেক্সিকোতে পূর্ববর্তী সরকারই দেশটিতে সবচেয়ে বেশি মানবাধিকার লঙ্ঘন করেছে বলে মন্তব্য করলেন বর্তমান প্রেসিডেন্ট অ্যান্দ্রে ম্যানুয়েল লোপে অব্রাদর। তিনি বলেন, গুম ও সহিংসতার জন্য তার পূর্বসূরীদের নব্য উদারবাদ অর্থনৈতিক নীতিই দায়ী।
মেক্সিকোতে ১০ হাজারেরও বেশি মানুষ গুম হয়ে গেছেন। ২০০৬ সাল থেকে মাদকচক্র ও সরকারি নিরাপত্তা বাহিনীর সংঘর্ষে এখন পর্যন্ত প্রাণ হারিয়েছেন ২০ হাজারেরও বেশি মানুষ।
গুম হয়ে যাওয়া ঠেকাতে পদক্ষেপ নেওয়া হবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘আমি প্রেসিডেন্ট ও দেশের সেনাবাহিনীর কমান্ডার হিসেবে বলতে চাই, মেক্সিকোর জনগণকে আরও কখনোই রাষ্ট্রীয় নিপীড়নের শিকার হতে হবে না।
তিনি বলেন, ‘একটা সময় সবচেয়ে বেশি মানবাধিকার লঙ্ঘন রাষ্ট্রের মাধ্যমেই হতো। মানবাধিকার লঙ্ঘনের সবচেয়ে ঘৃণিত উদাহরণ ছিলো তা। কিন্তু এখন সেই সময় শেষ।’
মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনায় একাধিকবার আন্তর্জাতিক সংগঠনগুলোর সমালোচনায় পড়েছে মেক্সিকো। বিশেষ করে ২০১৪ সালে দেশটির দক্ষিণপশ্চিমাঞ্চলীয় শহর ইগুয়ালা থেকে ৪৩ শিক্ষক-শিক্ষার্থী নিখোঁজ হয়ে যাওয়ার ঘটনায় সমালোচনার ঝড় ওঠে সরকারের বিরুদ্ধে।
সরকার দাবি করে, ওই তরুণদেরকে স্থানীয় একটি সন্ত্রাসী চক্রের হাতে তুলে দেয় দুর্নীতিগ্রস্ত পুলিশ। এরপর তাদের হত্যা করা হয়। তবে শিক্ষকদের পরিণতি নিয়ে কিছু জানা যায়নি। এই ঘটনায় আন্তর্জাতিক অঙ্গনে মেক্সিকোর ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন হয় ও তোপের মুখে পড়েন তৎকালীন প্রেসিডেন্ট এনরিক পেনা নিয়েতো।
গত ডিসেম্বরে দায়িত্বগ্রহণ করা লোপেজ ওব্রাদোর বলেন, তিনি পূর্ববর্তী প্রশাসনের মতো কাজ করতে চান না। ‘চোখের বিনিময়ে চোখ, সহিংসতা থামাতে সহিংসতা’ এমন নীতিতে বিশ্বাস করেন না তিনি। তিনি বলেন, ২৬ হাজার অজ্ঞাতনামা মরদেহ পরিবারকে ফিরিয়ে দিতে এবং নিখোঁজদের খুঁজে বের করতে চেষ্টার কোনও ত্রুটি রাখবেন না তিনি।

বাংলাদেশ সময়: ১৬:০৬:২২ ● ৪৪৯ বার পঠিত




পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)

আর্কাইভ