স্বাধীনতার চেতনা বেঁচে থাকবে অনন্তকাল: পর্যটন প্রতিমন্ত্রী

প্রথম পাতা » রাজনীতি » স্বাধীনতার চেতনা বেঁচে থাকবে অনন্তকাল: পর্যটন প্রতিমন্ত্রী
বৃহস্পতিবার ● ৪ এপ্রিল ২০১৯


হবিগঞ্জের মাধবপুরে আয়োজিত মুক্তিযোদ্ধা ও জনতার সমাবেশে পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলী

হবিগঞ্জ সাগরকন্যা প্রতিনিধি॥

বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলী বলেছেন, স্বাধীনতা সংগ্রামের চেতনা বেঁচে থাকবে অনন্তকাল। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও আদর্শ ছিল শোষণহীন সমাজ প্রতিষ্ঠা। যে কারণে বঙ্গবন্ধুর আহ্বানে সাড়া দিয়ে মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েছিলেন কৃষক-শ্রমিক জনতা।
বৃহস্পতিবার (৪ এপ্রিল) ঐতিহাসিক তেলিয়াপাড়া দিবস উপলক্ষে হবিগঞ্জের মাধবপুরে আয়োজিত মুক্তিযোদ্ধা ও জনতার সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রতিমন্ত্রী এসব কথা বলেন।
মাহবুব আলী বলেন, জাতির পিতাকে সপরিবারে হত্যার মাধ্যমে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে দেশ থেকে মুছে দিতে চেয়েছিল জিয়াউর রহমান। আর বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া রাজাকার ও আলবদরদের মন্ত্রী বানিয়ে তাদের মুক্তিযুদ্ধকে কলঙ্কিত করেছেন। তাদের সময়ে নির্যাতনের শিকার হয়েছেন মুক্তিযোদ্ধা পরিবার এবং অন্য সম্প্রদায়ের লোকজন। আর বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকার অসাম্প্রদায়িক উন্নত ও সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়তে কাজ করে যাচ্ছে বলেও জানান তিনি।
হবিগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) ফজলুল জাহিদ পাভেলের সভাপতিত্বে ও জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ আলী পাঠানের পরিচালনায় সমাবেশে আরও বক্তব্য রাখেন- সংসদ সদস্য গাজী মোহাম্মদ শাহ নেওয়াজ মিলাদ, সাবেক সেনাপ্রধান এবং মুক্তিযুদ্ধে ৩ নম্বর সেক্টর কমান্ডার কেএম শফিউল্লহ, নরসিংদী জেলা প্রশাসক (ডিসি) সৈয়দা ফারজানা কাউনাইন, ঢাকা মহানগর মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সভাপতি আমির হোসেন, নরসিংদীর মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার আ. মোতালেব, হবিগঞ্জ পুলিশ সুপার (এসপি) মোহাম্মদ উল্ল্যাহ প্রমুখ।
১৯৭১ সালের এই দিনে হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলার তেলিয়াপাড়া চা বাগানের ম্যানেজার বাংলোয় স্বাধীনতা যুদ্ধের প্রথম বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছিল। ইস্ট বেঙ্গল রেজিমেন্টের ঊর্ধ্বতন ২৭ সেনা কর্মকর্তার উপস্থিতিতে এ বৈঠকেই দেশকে স্বাধীন করার শপথ এবং যুদ্ধের রণকৌশল গ্রহণ করা হয়। মুক্তিযুদ্ধের রণাঙ্গণকে ভাগ করা হয় ১১টি সেক্টর ও ৩টি ব্রিগেডে। অস্ত্রের যোগান, আন্তর্জাতিক সমর্থনসহ গুরুত্বপূর্ণ ঐতিহাসিক সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় এ সভায়। প্রতিবছর ৪ এপ্রিল হবিগঞ্জ জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের উদ্যোগে নানা অনুষ্ঠানমালার আয়োজন করা হয়।

এফএন/এমআর

বাংলাদেশ সময়: ১৫:২৪:৫৬ ● ৩৭১ বার পঠিত




পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)

আর্কাইভ