দখল নয়, ক্রয়কৃত জমির বাউন্ডারি দিতে গিয়ে বিব্রতকর পরিস্থিতির শিকার এমপি মহিব

প্রথম পাতা » কুয়াকাটা » দখল নয়, ক্রয়কৃত জমির বাউন্ডারি দিতে গিয়ে বিব্রতকর পরিস্থিতির শিকার এমপি মহিব
শনিবার ● ৯ ফেব্রুয়ারী ২০১৯


কুয়াকাটা প্রেসকাবে সাংবাদিক সম্মেলনে উপস্থিত নেতৃবৃন্দ

কুয়াকাটা সাগরকন্যা অফিস॥

দখল নয়, নিজের ক্রয় করা সম্পত্তিতে বাউন্ডারি র্নিমাণ করতে গিয়ে বিব্রত পরিস্থিতে পড়েছেন এমপি মুহিব এমন দাবী করে সংবাদ সম্মেলন করেছে কুয়াকাটা পৌর স্বেচ্ছাসেবক লীগ সভাপতি। রবিবার বেলা ১০টায় কুয়াকাটা প্রেসকাবে এক সাংবাদিক সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে কুয়াকাটা স্বেচ্ছাসেবকলীগ সভাপতি শহীদ দেওয়ান বলেন, ৯৭ সালে ক্রয় করা জমিতে দীর্ঘদিন ধরে কোন স্থাপনা র্নিমাণ না করায় একশ্রেণীর ভাসমান ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান করে ব্যবসা করে আসছিল। অপরদিকে পানি উন্নয়নের বোর্ড তাদের মালিকানাধীন ৪৮ শতাংশ জমিতে ধাঁনসিড়ি নামে একটি গেস্ট হাউস র্নিমাণ করেছে। বাউন্ডারি ওয়াল র্নিমাণে করে তাদের জমি দখলে রয়েছে। কাজেই পটুয়াখালী-৪ আসনের সংসদ সদস্য পাউবো’র কোন জমি দখল করেননি। একটি চক্র পরিকল্পিতভাবে তাকে হেয় প্রতিপন্ন করার জন্য গণমাধ্যমকর্মীদের ভুল তথ্য দিয়ে সংবাদ পরিবেশ করিয়েছে।

লিখিত বক্তব্যে শহীদ দেওয়ান আরো বলেন, সেউ মগের কন্যা সেফরী মগ ৩৪নম্বর জেএল লতাচাপলী মৌজার ১৯৪১ সনের আরএস খতিয়ান মূলে মালিক। যার দাগ নম্বর ৫৩৪৮, ৫৩৪৯, ৫৪৮৫, ৫৩৬৩, ৫৩৫০, ৫৪৮৪, ৫৪৮৬। ১০৫৯ সনের এসএ ১১৬০ খতিয়ানমুলেও উক্ত ১ একর ৮ শতাংশ জমির মালিক থাকেন সেফরী মগ। সেফরী মগের লোকান্তরে ওয়ারিশ প্লিচিং মগনী কাছ থেকে ১৯৯৭ সানে ৩০৫০ নম্বর সাফ কবলা দলিল মুলে দুই একর জমি ক্রয় করেন মহিব্বুর রহমান গং। এরমধ্যে ৮০ শতাংশ জমি মহিব্বুর রহমানের নিজ নামীয়। যা পরবর্তীতে বিএস ১২৫৮ খতিয়ানে রেকর্ডভুক্ত হয়।

তিনি আরো বলেন, একই আরএস ও এসএ দাগ হতে ১৯৬৮ সনে পানি উন্নয়ন বোর্ড ৩৮ শতাংশ জমি সরকারের কাছ থেকে অধিগ্রহণ করে। কিন্তু উক্ত দাগের জমি ১৯৪১ সনে ব্যক্তি মালিকানায় রেকর্ড হয়। একইভাবে ১৯৫৯ সালেও এসএ রেকর্ড হয়। যার খতিয়ান নং ১১৬০। প্রকৃতপক্ষে উল্লেখিত দাগে সরকারের আদৌ কোন জমি ছিল না। আর পানি উন্নয়ন বোর্ড বিএস ৩৩৯৮,৩৩৯৯ দাগের ৪৮ শতাংশ জমি তাদের দখলে রয়েছে। কাজেই এমপি মহোদয় কর্তৃক পানি উন্নয়ন বোর্ডের জমি দখল করা শুধু গল্প নয় মিথ্যা প্রপাগন্ডা। তাকে সামাজিক ও রাজনৈতিকভাবে হেয় প্রতিপন্ন করার জন্য এসব মিথ্যা সংবাদ প্রকাশ করা হয়েছে।
মহিপুর থানা যুবলীগের আহবায়ক এ এম মিজানুর রহমান বুলেট বলেন, এমপি অধ্যক্ষ মুহিবকে সামাজিক ও রাজনৈতিকভাবে হেয় প্রতিপন্ন করার জন্য বিএনপি পন্থি কতিপয় ব্যক্তি এসব মিথ্যা সংবাদ সরবরাহ করেছে সাংবাদিকদের কাছে। এমন মিথ্যা সংবাদের তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানান তারা।

এসময় উপস্থিত দোকান মালিক শাহজাহান বিশ্বাস এবং আবু বকর বলেন, তারা কোন সাংবাদিকের কাছে অভিযোগ করেননি। কোন সাংবাদিক তাদের কাছে আসেননি এ বিষয় জানার জন্য। তাদের কেউ জোর করে উচ্ছেদ করেনি। তিনি নিজেই তার দোকান ঘর সরিয়ে নিয়ে গেছেন। তারপরও একটি পত্রিকায় তাদেরকে জরিয়ে মিথ্যা সংবাদ পরিবেশন করেছে। এমন সংবাদের প্রতিবাদ জানিয়েছেন দুই ব্যবসায়ী।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে পানি উন্নয়ন বোর্ড কলাপাড়া সার্কেলের নির্বাহী প্রকৌশলী শাহজাহান সিরাজ বলেন, উল্লেখিত দাগ এবং খতিয়ানের তার (এমপি মুহিব) কোন জমি নাই।

সংবাদ সম্মেলনে মহিপুর থানা শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম ফরাজী, মহিপুর থানা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক জামাল হাওলাদার, শ্রমিকলীগ নেতা শাকিল মৃধা, লুৎফুল হাসান রানা এবং স্থানীয় আ.লীগ, যুবলীগসহ অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য ৮ ফেব্রুয়ারী দৈনিক যুগান্তর প্রত্রিকায় ”পাউবোর জমি দখলে এমপি মুহিব” শিরোনামে একটি সংবাদ প্রকাশিত হয়। সেখানে বলা হয়েছে, এমপি হওয়ার ১ মাসের মাথায় কুয়াকাটায় পানি উন্নয়ন বোর্ডের কোটি কোটি টাকার সম্পত্তি দখল করে নিচ্ছেন পটুয়াখালী-৪ আসনের এমপি মুহিব্বুর রহমান মুহিব। ওই সংবাদের প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

কেএস

বাংলাদেশ সময়: ১৬:০৯:৫৬ ● ১৭২২ বার পঠিত




পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)

আর্কাইভ