বামনায় খন্দকার মাহবুব’র মৃত্যুতে বিভিন্ন মহলে শোক

প্রথম পাতা » বরগুনা » বামনায় খন্দকার মাহবুব’র মৃত্যুতে বিভিন্ন মহলে শোক
রবিবার ● ১ জানুয়ারী ২০২৩


বামনায় খন্দকার মাহবুব’র মৃত্যুতে বিভিন্ন মহলে শোক

বামনা(বরগুনা)সাগরকন্যা প্রতিনিধি॥

সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি ও বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান, বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের সাবেক সভাপতি, খন্দকার মাহবুব হোসেন অন্ধকল্যাণ সমিতির চেয়ারম্যান, খন্দকার মাহবুব হোসেন চক্ষু হাসপাতালের চেয়ারম্যান, দেশ বরেণ্য আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন এর মৃত্যুতে তাঁর গ্রামের বাড়ী বরগুনার বামনা উপজেলার কলাগাছিয়া গ্রামের খন্দকার বাড়ীতে মৃত্যুর সংবাদ শোনার সাথে সাথেই হাজার হাজার নারী-পুরুষ উপস্থিত হয় এবং বাড়ীর মসজিদে কোরআন খতম চলে। গতকাল ৩১ শে ডিসেম্বর থার্টি ফাস্ট নাইটে উপজেলার যুবকদের সকল ধরনের আনন্দ উল্লাস তাঁর মৃত্যুর সংবাদ শোনার সাথে সাথেই বন্ধ হয়ে যায়। উপজেলা ব্যাপী চলছে শোকের মাতম।
তাঁর মৃত্যুতে বরগুনা ০২ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য আলহাজ¦ নুরুল ইসলাম মণি, বরগুনা জেলা বিএনপি’র আহবায়ক মাহবুবুল আলম ফারুক মোল্লা, সিনিয়র যুগ্ন আহবায়ক এজেড এম সালেহ ফারুক, সদস্য সচিব তালিমুল ইসলাম পলাশ, সাবেক সভাপতি নজরুল ইসলাম মোল্লা, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল হালিম, বামনা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ সাইতুল ইসলাম লিটু, সাবেক ডেপুটি এটর্নি জেনারেল এডঃ হারুন অর-রশীদ, বামনা উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান সৈয়দ মানজুরুর রব মুর্তাযা আহসান, উপজেলা বিএনপি’র আহবায়ক আবুল কালাম আজাদ রানা, সিনিয়র যুগ্ন আহবায়ক এনায়েত কবীর হাওলাদার, সদস্য সচিব খন্দকার মহিদুল ইসলাম মোর্শেদ, জাতীয় পার্টির সভাপতি ফারুক আহম্মেদ আকন, বামনা প্রেসক্লাবের সভাপতি ওবায়দুল কবীর আকন্দ দুলাল,নবনির্বাচিত সভাপতি মোঃ নেছার উদ্দীন, সিনিয়র সহ সভাপতি মোঃ জাকির হোসাইন, সাধারণ সম্পাদক মোঃ নাসির মোল্লা, মফস্বল সাংবাদিক ফোরামের সভাপতি ও সুশাসনের জন্য নাগরিক মোঃ হাবিবুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক ওমর ফারুক সাবু, সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ সিদ্দিকুর রহমান মান্না, সাংবাদিক সমন্বয় পরিষদের সাধারণ সম্পাদক মনোতোষ হাওলাদার গভীর শোক প্রকাশ করেন।
খন্দকার মাহবুব হোসেন ১৯৩৮ সালের ২০ মার্চ জন্ম গ্রহণ করেন। তিনি ১৯৬৭ সালের ৩১ জানুয়ারী আইনজীবী হিসেবে অন্তর্ভুক্ত হন। ওই বছরের ২০ অক্টোবর তিনি হাইকোর্টের আইনজীবী হিসেবে তালিকাভুক্ত হন।
১৯৭৩ সালে দালাল আইনে যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের জন্যে গঠিত আদালতের প্রধান কৌঁসুলি ছিলেন তিনি।
খন্দকার মাহবুব হোসেন ২০০৮ সালে বিএনপিতে যোগ দেন। ২০০৯ সাল থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত তিনি বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ছিলেন। ২০১৬ সালে বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটিতে ভাইস চেয়ারম্যান পদ পান।
২০১৮ সালে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বরগুনা-২ আসন থেকে তিনি ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর কাছে পরাজিত হন। ওই আসন থেকে এর আগেও স্বতন্ত্র ও অন্য দল থেকে একাধিক বার তিনি নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। পুলিশের কর্তব্যকাজে বাধার অভিযোগে খন্দকার মাহবুব হোসেনের বিরুদ্ধে ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারী ঢাকার রমনা থানায় মামলা দায়ের হয়। ৭ জানুয়ারী ঢাকায় জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। একই বছরের ২৩ জানুয়ারী উচ্চ আদালত থেকে জামিনে মুক্ত হন।  দৈনিক ইত্তেফাক পত্রিকার প্রতিষ্ঠিাতা তোফাজ্জেল হোসেন মানিক মিয়া ছিলেন তার ভগ্নিপতি। সে সুবাদে ছাত্র জীবন থেকে বঙ্গবন্ধু পরিবারের সাথে ছিল তার ঘনিষ্ঠতা।
বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকার এভার কেয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ২০২২ সালের ৩১ ডিসেম্বর রাত দশটা ত্রিশ মিনিেিটর সময় তিনি মারা যান। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৮৬ বছর।

এইচআর/এমআর

বাংলাদেশ সময়: ২১:৫৫:২৪ ● ৩০ বার পঠিত




পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)

আর্কাইভ