আমতলীতে আ’লীগের পাল্টাপাল্টি বর্ধিত সভা, উত্তেজনা!

প্রথম পাতা » বরগুনা » আমতলীতে আ’লীগের পাল্টাপাল্টি বর্ধিত সভা, উত্তেজনা!
শনিবার ● ২১ মে ২০২২


আমতলীতে আ’লীগের পাল্টাপাল্টি বর্ধিত সভা, উত্তেজনা!

আমতলী (বরগুনা) সাগরকন্যা প্রতিনিধি॥

পৌর আওয়ামীলীগের দু’গ্রুপে ডাকা বর্ধিত সভা নিয়ে আমতলীতে টানটান উত্তেজনা বিরাজ করছে। পৌর আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক জিএম মুছা অভিযোগ করেন উপজেলা আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক (ভারপ্রাপ্ত) মোঃ মতিয়ার রহমান গঠনতন্ত্র বর্হিভুতভাবে বিএনপি জামায়াতের লোকজনদের কমিটিতে অন্তর্ভুক্ত করতে বর্ধিত সভা ডেকেছেন। সাধারণ সম্পাদক মোঃ মতিয়ার রহমান দাবী করেন গঠনতন্ত্র অনুসারে বর্ধিত সভা ডাকা হয়েছে। একই দিনে দু’গ্রুপে আলাদা আলাদা স্থানে বর্ধিত সভা আহবানে দলীয়  নেতা কর্মীদের মধ্যে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। প্রকাশ্যে রুপ নিচ্ছে উপজেলা আওয়ামীলীগের দ্বন্ধ।
জানাগেছে, তৃতীয় মেয়াদে আওয়ামীলীগ ক্ষমতার আসার পর থেকেই আমতলী উপজেলা আওয়ামীলীগের মধ্যে দলীয় কোন্দল শুরু হয়। কিন্তু উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা জিএম দেলওয়ার হোসেনের কারনে ওই কোন্দল মাথাচারা দিয়ে উঠতে পারেনি এমনটা দাবী করছেন তৃণমুল নেতাকর্মীরা। ২০১৯ সালের উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে দলীয় প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন পান উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি জিএম দেলওয়ার হোসেন। ওই নির্বাচনে দলের সাধারণ সম্পাদক (ভারপ্রাপ্ত) মোঃ মতিয়ার রহমান দলের মধ্যে কোন্দল সৃষ্টি করতে দলীয় প্রার্থী জিএম দেলওয়ারকে সমর্থণ না দিয়ে আওয়ামীলীগের কিছু নেতাকর্মী নিয়ে স্বতন্ত্রপ্রার্থী মোঃ সামসুদ্দিন আহম্মেদ ছজুরকে প্রকাশ্যে সমর্থন দেন। বিভিন্ন সভা সমাবেশে দলীয় প্রার্থীর বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে বক্তব্য রাখেন। ওই সময়ে দলীয় দ্বন্ধ প্রকাশ্যে রুপ নিলেও জিএম দেলওয়ারের কারনে তেমনটা আগাতে পারেনি বলে দাবী করেন তৃণমুল নেতাকর্মীরা। ২০২০ সালের ৯ এপ্রিল জিএম দেলওয়ার হোসেনের আকর্ষিক মৃত্যুর পরে দ্বন্ধ আবার মাথাচার দিয়ে উঠে। ওই সময়ের দ্বন্ধ  নেতা কর্মীদের মাঝে বিরাজমান থাকলেও প্রকাশ্যে রুপ নেয়নি। ২০২১  সালে উপজেলা আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক মোঃ মতিয়ার রহমানের ভাগ্নে মোঃ আবুল কালাম আজাদকে সন্ত্রাসীরা কুপিয়ে গুরুতর জখম করে। ওই ঘটনায় পৌর আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক জিএম মুছা ও উপজেলা যুবলীগ সভাপতি জিএম হাসানসহ ১৬ জন আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ ও স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন সাধারণ সম্পাদক মোঃ মতিয়ার রহমানের ভাগ্নে আজাদ। ওই মামলায় তারা দীর্ঘদিন জেল হাজতে ছিলেন। এতে দলীয় কোন্দল তীব্র থেকে তীব্রতর হয়। দলীয় কোন্দল তীব্র হলেও প্রকাশ্যে দু’গ্রুপ দলীয় সভা আহবান করেননি। রবিবার উপজেলা আওয়ামীলীগ একে স্কুল মাঠে পৌর আওয়ামীলীগের বর্ধিত সভা আহবান করেন। এদিকে গঠনতন্ত্র বিরোধী বর্ধিত সভা আহবানের অভিযোগ তুলে পৌর আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক জিএম মুছা একই দিনে দলীয় কার্যালয়ে পৌর আওয়ামীলীগের বর্ধিত সভার আহবান করেন। দুগ্রুপে একই দিনে পৃথক পৃথকভাবে সভা আহবান করায় দলীয় নেতাকর্মীদের মধ্যে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। পৌর আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক জিএম মুছা অভিযোগ করেন উপজেলা আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক (ভারপ্রাপ্ত) মোঃ মতিয়ার রহমান দলীয় গঠনতন্ত্র না মেনে নিজের ইচ্ছা মাফিক বর্ধিত সভা আহবান করেছেন। উপজেলা আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক মোঃ মতিয়ার রহমান দাবী করেন গঠনতন্ত্র মেনেই বর্ধিত সভা আহবান করা হয়েছে।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন নেতাকর্মী বলেন, উপজেলা আওয়ামীলীগ দ্বন্ধ দীর্ঘদিন ধরে চলে আসলেও দুগ্রুপের আহুত বর্ধিত সভা দিয়ে তা প্রকাশে রুপ নিয়েছে। দু’গ্রুপের একই দিনে সভা ডাকায় সাধারণ নেতাকর্মীরা বিপাকে পরেছে।  জেলা ও কেন্দ্রিয় আওয়ামীলীগ দ্রুত কার্যকরী Ÿ্যবস্থা না নিলে দলীয় কোন্দলে চরম বিপর্যয়ে পরবে উপজেলা আওয়ামীলীগ।
আমতলী পৌর আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক জিএম মুছা বলেন, উপজেলা আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক মোঃ মতিয়ার রহমান বিএনপি জামায়াতের লোকজনকে দলে জায়গা করে দিতেই গঠনতন্ত্র বিরোধী বর্ধিত সভার আহবান করছে। তিনি আরো বলেন, মতিয়ার রহমান ও তার ভাই মোঃ মজিবুর রহমান ছিল বিএনপি’র নেতা। তারা আওয়ামীলীগে এসে দলের মধ্যে কোন্দল সৃষ্টি করছে।
আমতলী উপজেলা আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক ভারপ্রাপ্ত মোঃ মতিয়ার রহমান বলেন, আওয়ামীলীগ একটি বড় সংগঠন। আমি সকলকে নিয়েই কমিটি গঠন করতে বর্ধিত সভা করছি কিন্তু একটি গ্রুপ পকেট কমিটি করতে তারা তাদের ইচ্ছামত বর্ধিত সভা ডেকে পকেট কমিটি করতে চায়।
আমতলী থানার ওসি একেএম মিজানুর রহমান বলেন, অনাঙ্খিত ঘটনা বন্ধে পুলিশ প্রশাসন সক্রিয় ভুমিকা রাখবে। তিনি আরো বলেন, কোন বিশৃঙ্খলা হতে দেয়া হবে না।

এমএইচকে/এমআর

বাংলাদেশ সময়: ২১:৩১:৫৯ ● ৪২ বার পঠিত




পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)

আর্কাইভ