দেশে মাদক নিয়ন্ত্রণে অ্যাকশন প্ল্যান অনুযায়ী কর্মকাণ্ড চালাচ্ছে সরকার

প্রথম পাতা » বিশেষ প্রতিবেদন » দেশে মাদক নিয়ন্ত্রণে অ্যাকশন প্ল্যান অনুযায়ী কর্মকাণ্ড চালাচ্ছে সরকার
শুক্রবার ● ২৫ জানুয়ারী ২০১৯


---

সাগরকন্যা এক্সক্লুসিভ রিপোর্ট॥
মাদক নিয়ন্ত্রণে সরকার অ্যাকশন প্ল্যান তৈরি করেছে সরকার। আর ওই প্ল্যান অনুযায়ীই বর্তমানে মাদকবিরোধী কর্মকাণ্ড পরিচালিত হচ্ছে। ইতিমধ্যে নতুন করে মাদক কারবারিদের তালিকা করা হচ্ছে। ওই তালিকা প্রণয়নে গোয়েন্দা সংস্থা ছাড়াও পুলিশ, বিজিবি, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর সম্মিলিতভাবে কাজ করছে। মাদক কারবারিদের এতোদিন গ্রেপ্তার এবং শাস্তি দেয়া হলেও এবার মাদকের টাকায় গড়ে তোলা সম্পদ বাজেয়াপ্ত করা হবে। তাছাড়া যেসব মাদক কারবারি আত্মসমর্পণ প্রক্রিয়ায় রয়েছে তাদের সম্পদ বাজেয়াপ্তের বিষয়ে আদালত নির্দেশনা দেবেন। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সংশ্লিষ্ট সূত্রে এসব তথ্য জানা যায়।
সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, অপরাধের মাত্রা অনুযায়ী তালিকায় তিন ক্যাটাগরিতে মাদক কারবারিদের নাম থাকবে। ক্যাটাগরি অনুসারেই আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। গত নভেম্বর থেকে ওই তালিকা প্রস্তুতের কাজ শুরু হয়েছে। শুধু মাদক কারবারি নয়, যারা সেবন করে তাদেরও আনা হচ্ছে তালিকায়। ওই তালিকা করার জন্য মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর, জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউট ও উপজেলা প্রশাসনকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। তাছাড়া তালিকাভুক্ত মাদকাসক্তদের নিরাময় কেন্দ্রে ভর্তি করে আসক্তি থেকে মুক্ত করার বিষয়েও কাজ করছে সরকার। মাদক নিয়ন্ত্রণে অ্যাকশন প্ল্যানের অংশ হিসেবে দেশের ৮টি বিভাগের ১১টি উপজেলাকে মাদকমুক্ত উপজেলা ঘোষণা করা হবে।
সূত্র জানায়, মাদক নিয়ন্ত্রণের অ্যাকশন প্ল্যানের মধ্যে রয়েছে সীমান্ত পথে যাবতীয় মাদকদ্রব্যের অবৈধ প্রবেশ ও পাচার বন্ধ। দেশের অভ্যন্তরে যাবতীয় মাদকের অবৈধ উৎপাদন, সরবরাহ ও সহজলভ্য বিলোপ করা। মাদক অপরাধের সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিবর্গ, তাদের মদদদাতা, সাহায্যকারী ও অর্থলগ্নিকারীদের গ্রেপ্তার এবং যথাযথ তদন্ত ও বিচারের মাধ্যমে শাস্তি নিশ্চিত করা। মাদক কারবারিদের যাবতীয় অর্থ-সম্পদ রাষ্ট্রের অনুকূলে বাজেয়াপ্ত করা হবে। একই সাথে মানি লন্ডারিং আইন ২০১২ (২০১৫ সালে সংশোধিত) প্রয়োগ নিশ্চিত করা। ওষুধ উৎপাদন, চিকিৎসা ও শিল্প-কারখানা, বৈজ্ঞানিক গবেষণায় ব্যবহৃত কেমিক্যাল ও মাদক জাতীয় কাঁচামাল যাতে কালোবাজারে পাচার হয়ে মাদক উৎপাদনে অপব্যবহার না হয় তাও নিশ্চিত করা। একই সাথে মাদকাসক্ত ব্যক্তিদের চিকিৎসা ও পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করা।
সূত্র আরো জানায়, নতুন মাদক আইনের ৩৪ এর ৩ অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে, ‘কোনো মাদকদ্রব্য অপরাধের জন্য দায়েরকৃত কোনো মামলা চলাকালীন অভিযোগকারী যদি এই মর্মে আবেদন করেন, অভিযুক্ত ব্যক্তির মাদকদ্রব্য অপরাধ প্রমাণিত হইলে তাহার সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করিবার প্রয়োজন হইবে এবং সেই কারণে তাহার সম্পত্তির বিক্রয়, বন্ধক, হস্তান্তর অথবা অন্য কোনো প্রকার লেনদেন মামলা নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত নিষিদ্ধ করিবার আদেশ প্রদান প্রয়োজন, তাহা হইলে ম্যাজিস্ট্রেট বা ট্রাইব্যুনাল উভয় পক্ষকে যুক্তিসংগত শুনানির সুযোগ দান করিয়া, প্রয়োজনবোধে, অনুরূপ আদেশ প্রদান করিবে।’
এদিকে ইয়াবা নিয়ন্ত্রণে সরকারের তরফ থেকে বছর দুয়েক আগে ৫টি সংস্থা কারবারিদের তালিকা তৈরি করেছিল। ওই তালিকায় যেসব মাদক কারবারির নাম ছিল তাদেরকে নিয়ে একটি আলাদা তালিকা করা হয়। ওই তালিকার অনেকেই বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছে। অনেকে আবার রয়েছে ধরাছোঁয়ার বাইরে। কেউ কেউ পালিয়ে দেশের বাইরে চলে গেছে। সব মিলিয়ে ওসব মাদক কারবারির মধ্যে কে কোথায় আছে, নতুন কেউ এই কারবারে যোগ দিয়েছে কি না তা খতিয়ে দেখতে নতুন তালিকা শুরু হয়েছে। আর তালিকা চূড়ান্ত হওয়ার পর একযোগে জেলা-উপজেলাভিত্তিক টাস্কফোর্স অভিযান পরিচালনা করবে। তালিকাভুক্ত সব মাদক কারবারিকে গ্রেপ্তার না করা পর্যন্ত অভিযান অব্যাহত থাকবে। অভিযান পরিচালনার সময় কোনো কর্মকর্তার পারফরম্যান্স খারাপ হলে তার বিরুদ্ধেও বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। আর নতুন তালিকার মধ্যে একই ব্যক্তির নাম প্রতিটি তালিকায় থাকলে তাকে ‘এ’ ক্যাটাগরি, দুটি তালিকায় থাকলে ‘বি’ ক্যাটাগরি আর অন্যদের ‘সি’ ক্যাটাগরির মাদক কারবারি হিসেবে চিহ্নিত করা হবে। মাদক কারবারিদের তালিকা তিন মাস অন্তর হালনাগাদ করে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা সেবা বিভাগে পাঠানোর নির্দেশ দেয়া হয়েছে।
অন্যদিকে সরকারের অ্যাকশন প্ল্যানে মাদকমুক্ত উপজেলা ঘোষণার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। পাইলট প্রজেক্ট হিসেবে সেজন্য দেশের ৮টি বিভাগের ১১টি উপজেলাকে নির্বাচিত করা হয়েছে। ওই উপজেলাগুলো হলো ঢাকা বিভাগের নবাবগঞ্জ উপজেলা, চট্টগ্রাম বিভাগের নোয়াখালীর কবিরহাট উপজেলা, রংপুর বিভাগের ঠাকুরগাঁও সদর, খুলনা বিভাগের নড়াইল সদর, কালিয়া, লোহাগড়া ও নড়াগাতি উপজেলা, সিলেট বিভাগের মৌলভীবাজারের জুড়ি উপজেলা, রাজশাহীর মোহনপুর, বরিশালের ঝালকাঠি সদর এবং ময়মনসিংহ বিভাগের শেরপুরের নকলা উপজেলা।
এ বিষয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব আতিকুল হক জানান, মাদকের আগ্রাসন রোধে একটি অ্যাকশন প্ল্যান তৈরি করা হয়েছে। সে অনুযায়ী কাজ করা হচ্ছে। পাশাপাশি দেশের প্রতিটি বিভাগের একটি করে উপজেলা ও খুলনা বিভাগের নড়াইল জেলাকে মাদকমুক্ত ঘোষণার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

এফএন/এনইউবি

বাংলাদেশ সময়: ৮:৩৫:০৪ ● ৫০৫ বার পঠিত




পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)

আর্কাইভ