আমতলীতে অবৈধ স্থাপনা অপসারণ দাবি শিক্ষার্থীদের

প্রথম পাতা » বরগুনা » আমতলীতে অবৈধ স্থাপনা অপসারণ দাবি শিক্ষার্থীদের
বৃহস্পতিবার ● ১৬ মে ২০২৪


আমতলীতে অবৈধ স্থাপনা অপসারণ দাবি শিক্ষার্থীদের

আমতলী (বরগুনা) সাগরকন্যা প্রতিনিধি॥

আমতলী সরকারী কলেজের সামনের অবৈধ স্থাপনা অপসারণ দাবীকে শিক্ষার্থীরা মানববন্ধন ও বিক্ষোভ করেছে। বৃহস্পতিবার দুপুরে কলেজের সামনের সড়কের অন্তত দুই শতাধিক কলেজ শিক্ষার্থী  এ কর্মসুচী পালন করেছে।
জানাগেছে, ২০১৭ সালে আমতলী সরকারী কলেজের সামনে পানি নিস্কাশনের খালে জেলা পরিষদের নামমাত্র লিজ নিয়ে শতাধিক অবৈধ স্থাপনা নির্মাণ করেন একটি প্রভাবশালী মহল। ওই মহল স্থাপনা নির্মাণ করে ব্যবসায়ীদের কাছে ভাড়া দেয়। ব্যবসায়ীরা ওই খালে ময়লা আবর্জনা ফেলে পরিবেশ দুষিত করছে। এতে আমতলী সরকারী কলেজের সৌন্দর্য ও পরিবেশ চরমভাবে বিঘিœত হচ্ছে। কলেজের অনেক মেয়েরা ব্যবসায়ীদের কাছে উত্যাক্তের শিকার হচ্ছে। গত ৭ বছরে অন্তত অর্ধ শতাধিক উত্যাক্তের ঘটনা ঘটে বলে দাবী করেন শিক্ষার্থীরা। এছাড়া খালে ময়লা আবর্জনা ফেলে রাখায় পরিবেশ চরমভাবে বিঘিœত হচ্ছে। ক্লাস চলাকালিন সময়ে দুর্ঘন্ধে শ্রেনী কক্ষে পাঠদান ব্যহত হচ্ছে। এ পরিবেশ দুষণকারী অবৈধ স্থাপনা অপসারনের দাবীতে কলেজের শিক্ষার্থীরা মানববন্ধন ও বিক্ষোভ করেছে। বৃহস্পতিবার দুপুরে কলেজের সামনের সড়কে দুই শতাধিক শিক্ষার্থী এ কর্মসুচী পালন করে। কলেজের দ্বাদশ শ্রেনীর ছাত্র রনি গাজীর সভাপতিত্বে মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন রাফসান বিন ইমরান, সাদিয়া মীম ও ইসরাত জাহান প্রমুখ।  মানববন্ধনে দ্রুত কলেজের সামনে অবৈধভাবে গড়ে উঠা স্থাপনা অপসারনের দাবী জানান তারা।
আমতলী সরকারী কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর মোঃ জসিম উদ্দিন বলেন, অবৈধ স্থাপনা নির্মাণের ফলে কলেজের পরিবেশ চরমভাবে বিঘিœত হচ্ছে। ক্লাস চলাকালিন সময়ে দুর্গন্ধে পাঠদান ব্যহত হচ্ছে। দ্রুত এ অবৈধ স্থাপনা অপসারনের করা প্রয়োজন।
আমতলী থানার ওসি কাজী সাখাওয়াত হোসেন তপু বলেন, শিক্ষার্থীরা তাদের দাবী আদায়ের শান্তিপুর্ণভাবে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ করেছে।
আমতলী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মুহাম্মদ আশরাফুল আলম বলেন,শিক্ষার্থীদের দাবী যৌক্তিক। কিন্তু জেলা পরিষদ লিজ বাতিল না করায় অপসারণ করতে পারছি না।
বরগুনা জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান জেলা আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব জাহাঙ্গীর কবির বলেন, কলেজের সৌন্দর্য ও পরিবেশ দুষণ হতে রক্ষায় সকল পদক্ষেপ নেয়া হবে।

এমএইচকে/এমআর

বাংলাদেশ সময়: ২১:৫৭:৩৯ ● ৬৫ বার পঠিত




পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)

আর্কাইভ