পায়রা সেতুর নামফলক ঢাকা পড়েছে ব্যানার-পোস্টারে!

প্রথম পাতা » পটুয়াখালী » পায়রা সেতুর নামফলক ঢাকা পড়েছে ব্যানার-পোস্টারে!
রবিবার ● ২২ জানুয়ারী ২০২৩


পায়রা সেতুর নামফলক ঢাকা পড়েছে ব্যানার-পোস্টারে!

দুমকি (পটুয়াখালী) সাগরকন্যা প্রতিনিধি॥

পটুয়াখালীর দুমকিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদ্বোধনকৃত পায়রা সেতুর নামফলকটি ঢাকা পড়েছে বিভিন্ন রাজনৈতিক ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের ব্যানার-পোস্টারে। রাজনৈতিক ব্যক্তি-প্রতিষ্ঠানের প্রচারণায় ব্যবহৃত এসব ব্যানার পোস্টারে সেতুর নামফলক চত্ত্বরের চার পাশের বেষ্টনী অন্ততঃ ৫/৬ফুট উচ্চতায় ঢাকা পড়ায় একদিকে দূর্ঘটনার ঝুঁকি বেড়েছে, অপরদিকে সৌন্দর্য হারাচ্ছে।
গত২১ সালের ২৪অক্টোবর বর্তমান সরকারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম সৌন্দর্যের ঝুলন্ত পায়রা সেতুটির উদ্বোধন করেন। সেতুটির টোলপ্লাজার অদূরে নির্মিত হয় দৃষ্টিনন্দন উদ্বোধনী ফলক। যার চারপাশে দেয়া হয়েছে বৃত্তাকার ষ্টেইনলেস ষ্টিলের বেষ্টনী। বসানো হয়েছে সুউচ্চের ফ্লাড লাইটের ব্যবস্থা। দিনের সৌন্দর্যের পাশাপাশি রাতে ফ্লাড লাইটের ঝলমল আলোতে নাম ফলক চত্ত্বরটি পায়রা সেতুর সৌন্দর্য আরো একধাপ এগিয়ে দিয়েছে। এমন অনিন্দ সৌর্যের নামফলক চত্ত্বরটি কতিপয় উঠতি রাজনৈতিক ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের আগ্রাসনে এখন মারাত্মক ঝুঁকির সম্মুখীন।
সরেজমিন পরিদর্শণে দেখাগেছে, ঢাকা-বরিশাল-কুয়াকাটা মহাসড়কের ইউনিভার্সিটি স্কোয়ার নামে পরিচিত এ গোলচত্ত্বরটি অত্যন্ত ব্যস্ততম একটি জায়গা। এই পায়রা সেতুর নাম ফলকের এ গোলচত্ত্বরের চারপাশ ঘিরে নানাধরণের প্রচার-প্রচারণার পোস্টার ব্যানারে আবৃত থাকায় বিভিন্ন রুটের যানবাহনের চালকদের প্রায়শই পড়তে হচ্ছে ভীষণ বিপাকে। এপাশ থেকে অন্যপাশে কিছুই দেখা যায় না, ফলে বিভিন্ন সময়ে এখানে ঘটছে দূর্ঘটনা। সড়ক ও জনপদ অধিদপ্তর কর্তৃক প্রদত্ত স্থানের নাম নির্দেশক তীর চিহ্নগুলোও ঢাকা পড়েছে ব্যানারে।
পটুয়াখালী-বরিশাল রুটের বাস চালক ও পরিবহন শ্রমিকরা পোস্টার বিড়ম্বনা নিয়ে তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। আবদুল খালেক হাওলাদার নামের এজন বাসচলক বলেন, গোলচত্ত্বরের চারপাশ ব্যানার-পোষ্টার ও ফেস্টুনে ঢেকে থাকায় বিপরীত দিকে কিছুই দেখা যায়না। একারনে সবসময় অনাকাঙ্খিত দুর্ঘটনার আতংকে থাকতে হয় তাদের।
স্থানীয় বাসিন্দা আশিকুর শাওন বলেন, পায়রা সেতু আমাদের জন্য বিশাল আশীর্বাদস্বরুপ হলেও তদারকির অভাবে দিনে দিনে এটি সৌন্দর্য হাড়াচ্ছে। এখন এমন অবস্থা হয়েছে যেন এখানে কোনো ফলকই নেই..!  অতিদ্রুত এটি পরিচ্ছন্ন চাই এবং এর সুষ্ঠু তদারকি চাই।
পটুয়াখালী সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী এ.এম.আতিকুল্লাহ সাগরকন্যাকে বলেন, সরেজমিনে বিষয়টি দেখে খুব শিঘ্রই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
দুমকি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জনাব আল ইমরান বলেন, আমি দেশের বাইরে ছিলাম আজই এসেছি, বিষয়টি আমি নিজে দেখে ব্যবস্থা নিবো।

এমআর

বাংলাদেশ সময়: ২১:৪৮:০৫ ● ১৫ বার পঠিত




পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)

আর্কাইভ