চরফ্যাশনে গুড়িয়ে দেয়া ইটভাটা ফের চালু

প্রথম পাতা » ব্রেকিং নিউজ » চরফ্যাশনে গুড়িয়ে দেয়া ইটভাটা ফের চালু
বুধবার ● ১৯ জানুয়ারী ২০২২


চরফ্যাশনে গুড়িয়ে দেয়া  ইটভাটা ফের চালু

চরফ্যাশন(ভোলা) সাগরকন্যা প্রতিনিধি॥

গেলবছর চরফ্যাশন উপজেলার ৬টি অবৈধ ইট ভাটা ভেঙে দেয়ার পরেও অসাধু ব্যক্তিদের ছত্রছায়ায় আবারো তা চালু করেছে প্রভাবশালী মহল। শুধুমাত্র ড্রামসিটের চিমনি দাড় করিয়ে হাজার, হাজার টন বনেরকাঠ উজাড় করে ফসলি জমির মাটি ও ভাটা সংলগ্ন সরকারী খালের মাটি দিয়ে এ ভাটাগুলোতে ইট পোড়াচ্ছে অবৈধ ব্যবসায়ীরা। বেতুয়া টু চরফ্যাশন সড়কে স্কুলের পাশে রয়েছে “মের্সার্স এ আলী”নামের ব্রিকফিল্ড।
জানাযায়, সরকারি ভাবে পরিবেশ অধিদপ্তরের নিয়ম-নীতির তোয়াক্কা না করেই প্রত্যন্ত অঞ্চলের গ্রামীণ পরিবেশেই গড়ে উঠেছে প্রায় ১০টি অবৈধ ইটভাটা। এসব অবৈধ ভাটার নেই কোনো পরিবেশ অধিদপ্তরের অনুমোদন বা ছাড়পত্র। প্রশাসনের বিধিনিষেধ উপেক্ষা করে ইট পোড়ানো হচ্ছে এসব ভাটা গুলোতে। চরফ্যাশন উপজেলার প্রত্যন্ত এলাকা দক্ষিণ আইচার মানিকা, হাজারীগঞ্জ, চরকলমী, আবদুল্লাহপুর, রসুলপুর, নীলকমল, ঘোষেরহাট, আসলামপুর ও মাদ্রাজ ইউনিয়নে রয়েছে এ ভাটাগুলো।
সরজমিন ঘুরে দেখাযায়,ভাটাগুলোতে রয়েছে গাছকাটার স‘-মিল। এ স‘-মিলে হাজার, হাজার মন লাকড়ি ও গাছের গুড়ি কেটে ইট পোড়ানোর কার্যক্রম চলছে। দিনরাত কাঁচা ইট তৈরী করে সাড়ি সাড়ি ইট সাজিয়ে রোদে শুকানো হচ্ছে। স্থানিয় এলাকাবাসীরা বলছেন, ফসলী জমিতে অবৈধভাবে ড্রামসিটের তৈরী চিমনি ব্যবহার করে লাকড়ি দিয়ে ইট পোড়ানো হচ্ছে। যার ফলে এলাকার গর্ভবতি নারী ও শিশুসহ আবাল বৃদ্ধরা স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে রয়েছে। পাশাপাশি পরিবেশেরও ক্ষতি হচ্ছে। অবৈধভাটার কালো ধোয়ার কারণে ভাটাসংলগ্ন জমির ফসল নষ্ট হয়ে যাচ্ছে বলেও স্থানীয় কৃষকরা জানান।
কৃষক সালাম হাওলাদার বলেন, অবৈধভাটাগুলোর বিষয়ে প্রশাসনের কোনো হস্তক্ষেপ নেই। এর আগে প্রশাসন অভিযান চালিয়ে কয়েকটি বিক্স গুড়িয়ে দিলেও পুনরায় ওই ব্রিক্সগুলো অসাধুকর্তা ব্যক্তিদের ম্যানেজ করে চালু করেছে দাবি করে তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করেন। কৃষক লতিফ মিয়া বলেন অবৈধ ইট ভাটার কারণে আমার ৬-একর জমিতে কোনো ফসল ফলাতে পারিনা। জমিগুলো কারো কাছে লগ্নী করতেও পারিনা। চাষিরা এই জমি নিতে চাচ্ছেনা।
স্থানীয় একাধীক এলাকাবাসী বলেন, কলমী ৯নং ওয়ার্ডের চর-মঙ্গল মৌজায় প্রায় ৫একর সরকারি জমির মধ্যে মানুষের ভোগ দখলীয় ফসলী জমি নষ্ট করে আবাসিক এলাকায় ড্রামসিট চিমনি দ্বারা লাকড়ি পুড়িয়ে ইট তৈরী করা হচ্ছে। হাজার হেক্টর জমির ফসলী ক্ষেত বনজ ও ফলদ বাগানসহ শতাধিকের বেশি বসতবাড়ি রয়েছে ভাটাগুলোর পাশে। এ ভাটাগুলো গতবছর প্রশাসন ভেঙে দিলেও তা পুনরায় তৈরী করেছে প্রভাবশালী মহলগুলো। দক্ষিণআইচা মানিকা ইউনিয়নের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধীক বাসিন্দা বলেন, প্রত্যন্ত এলাকায় অবস্থিত অনেক ইট ভাটার সংশ্লীষ্ট প্রশাসনের অনুমোদন ও ছাড়পত্র না থাকলেও অদৃশ্য অনুমোদন ও মাসিক চাঁদার ছাড়পত্রেই চলছে ভাটাগুলো।
পরিবেশ অধিদপ্তর কর্তৃক ভেঙে দেয়ার পরেও পুনরায় এ অবৈধ ইট ভাটা নির্মাণ করে ইট পোড়ানো হলেও উপজেলা প্রশাসন ও ভোলা পরিবেশ অধিদপ্তরের ভূমিকা নিয়ে জনমনে প্রশ্ন উঠেছে। সচেতন মহল বলেন, এর আগেও বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় অবৈধ ইট ভাটা নিয়ে সংবাদ প্রকাশের পরেও অবৈধ ভাটাগুলোর কার্যক্রম নজরে আসছে না সংশ্লীষ্ট দপ্তরগুলোর।  ভাটাগুলোতে নদী ও খাল থেকে ড্রেজার দিয়ে মাটি এনে ইট তৈরী করা হচ্ছে বলেও ভাটাসংলগ্ন বাসিন্দারা দাবি করেন।
তাঁরা বলেন, রাতভর ড্রেজিং ও বেকুদিয়ে ফসলী জমির পাশে মাটি কেটে গভীর খনন করে ইট তৈরীর মাটি সংগ্রহ করছে ভাটাগুলো। ভেঙে ফেলা ভাটাগুলো পুনরায় নির্মাণের বিষয়ে কয়েকটি ভাটার মালিক জানান, তাঁরা পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্রের জন্য দরখাস্ত জমা দিয়েছেন। এর পরেও প্রশাসনের অভিযানে তাঁেদর ভাটাগুলো ভেঙে ফেলা হয়। যার ফলে তাঁরা লাখ, লাখ টাকার লোকসানে পড়েন। ছাড়পত্রের জন্য পরিবেশবান্ধব ঝিকঝাক ভাটা নির্মাণে প্রচুর ইটের প্রয়োজন।  আর তাই কিছু ইট পুড়িয়ে পরিবেশবান্ধব চিমনি তৈরী করতে হবে বলে জানান তাঁরা।
সম্প্রতি চরফ্যাশন উপজেলা পরিষদের সম্মেলন কক্ষে পরিবেশ বিষয়ক সভায় আসলামপুর আয়শাবাগ সরকারি প্রাথমিক স্কুলসংলগ্ন বাবুলের এ আলী নামক ব্রিকস ফিল্ড রয়েছে। যা কমলমতি শিশুদের স্বাস্থের ঝুঁিকতে রয়েছে। বিষয় উত্থাপন করা হয়েছে। তারপরেও পরিবেশ অধিদপ্তর কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করেননি।
ভোলা পরিবেশ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক আবদুল মালেক বলেন, ড্রামসিট চিমনি ব্যবহার করা দন্ডনীয় অপরাধ। আমরা সম্প্রতি শানিমা-২, মাইশা-২ ও ফরাজী ব্রিক্সে অভিযান চালিয়ে ৪লাখ টাকা জরিমানা করেছি। এবং ভেঙে ফেলা যেসব ব্রিক্সগুলো পুনঃরায় নির্মাণ করা হয়েছে সেগুলোর কোনো অনুমোদন নেই। এ আলীসহ কয়েকটি ব্রিকস ্ফিন্ডে সেপ্টেম্বরে পরিবেশ থেকে চিঠি দেয়া হয়েছে। আইন না মানলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা  গ্রহণ করা হবে। তবে ঠিক কতটি অবৈধ ভাটা রয়েছে জানতে চাইলে তার সদুত্তর দেননি এ কর্মকর্তা।

এএইচ/এমআর

বাংলাদেশ সময়: ২২:২৫:০৬ ● ৭৬ বার পঠিত




পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)

আর্কাইভ