টুঙ্গিপাড়ায় প্রধান শিক্ষকের অপসারন দাবিতে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ

প্রথম পাতা » ঢাকা » টুঙ্গিপাড়ায় প্রধান শিক্ষকের অপসারন দাবিতে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ
মঙ্গলবার ● ১৭ মার্চ ২০২০


টুঙ্গিপাড়ায় প্রধান শিক্ষকের অপসারন দাবিতে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ

টুঙ্গিপাড়া (গোপালগঞ্জ) সাগরকন্যা প্রতিনিধি॥

গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়া উপজেলার বর্নি ইউনিয়নের বাশুরিয়া সেনেরচর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক প্রফুল্ল কুমার বিশ্বাসের অপসারন দাবিতে টায়ার পুরিয়ে ও রাস্তা আটকে বিক্ষোভ করেছে শিক্ষার্থীরা।
সোমবার বিকালে বিদ্যালয়ের মাঠে ও সামনের রাস্তায় বিক্ষোভ করে শিক্ষার্থীরা। পরে মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. শাহ-জালাল ও বর্নি ইউপি চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলাম বাদশা ঘটনাস্থলে গিয়ে বিক্ষুদ্ধ শিক্ষার্থীদের শান্ত করেন ও ১৮ মার্চ এবিষয়ের সূরাহা দেয়ার আশ্বাস দেন।

বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা জানান, প্রধান শিক্ষক প্রফুল্ল কুমার বিশ্বাস তার ইচ্ছামত বিদ্যালয় পরিচালনা করেন। একদিন বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত থাকলে পঞ্চাশ টাকা জরিমানা আদায় করে নেন। পরের দিন টাকা না দিলে একশ টাকা আদায় করেন। বাজে ভাষায় গালাগালি করে। কেউ টাকা না দিলে তার বই, স্কুল ব্যাগ রেখে দেন। এছাড়া প্রধান শিক্ষক মেয়েদের বাজে কমেন্ট করেন। তাদের চাপা চাপা জামা পরে আসতে বলেন। তাই এই সেচ্ছাচারী শিক্ষকের অপসারন চান শিক্ষার্থীরা।

তবে শিক্ষার্থীদের এসব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন প্রধান শিক্ষক প্রফুল্ল কুমার। তিনি কোন জরিমানা আদায় করেননা জানিয়ে বলেন, কিছু ছেলেরা মেয়েদের বিরক্ত করেছে ও বিদ্যালয়ের দেয়াল ভেঙ্গে ফেলেছে। তিনি এই বিষয়ের প্রতিবাদ করলে ছাত্ররা তার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ করছে।

কিন্তু অভিভাবক হাসেম আলী শেখ জানান, তার মেয়ে ঐ বিদ্যালয়ে ৬ষ্ট শ্রেনীতে পরে। মেয়ে অসুস্থ থাকায় স্কুলে না যাওয়ায় তিনিও বহুবার জরিমানা দিয়েছেন। তিনি আরো জানান, যদি কোন অভিভাবক তার সন্তানকে প্রাইভেট পড়াতে চায় তাহলে বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের কাছেই পড়তে হবে। অন্য কোথাও পড়ালে ফেল করানোর হুমকিও দেয়া হয়।

স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলাম জানান, করোনা রোধে বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের সাবান দেয়ার জন্য গেলে দেখতে পাই শিক্ষার্থীরা বিক্ষুদ্ধভাবে ঘোরাফেরা করছে। তখন জানতে চাইলে শিক্ষার্থীরা বলে আমরা প্রধান শিক্ষকের অপসারন চাই। প্রধান শিক্ষক আমাদের বাজে ভাষায় গালাগালি করে, অকারনে জরিমানা ধরে, একদিন স্কুলে না আসলে পঞ্চাশ টাকা, পরের দিন না দিলে জরিমানা দ্বিগুন। তখন তাদের বুঝিয়ে চলে আসার পর শিক্ষার্থীরা টায়ার পুরিয়ে ও রাস্তা অবরোধ করে বিক্ষোভ করেছে। খবর পেয়ে পূনরায় সেখানে এসে ঘটনাটি ইউএনও ও মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তাকে জানাই।

মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. শাহজালাল বলেন, শিক্ষার্থীরা প্রধান শিক্ষকের অপসারন দাবিতে বিক্ষোভ করেছে। প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে শিক্ষার্থীদের ব্যাপক অভিযোগ। তাই ১৮ মার্চ উপজেলার গন্যমান্য ব্যাক্তিবর্গ উপস্থিতিতে বিষয়টি সূরাহা করা হবে। তার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ সত্য হলে প্রয়োজনীয় ব্যাবস্থা গ্রহন করা হবে।

এসএস/এমআর

বাংলাদেশ সময়: ২২:৪৯:৪৭ ● ৩১৭ বার পঠিত




পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)

আর্কাইভ