খুব দ্রুত ‘নগর অ্যাপস’ আসছে: ডিএনসিসি মেয়র

প্রথম পাতা » প্রযুক্তি » খুব দ্রুত ‘নগর অ্যাপস’ আসছে: ডিএনসিসি মেয়র
মঙ্গলবার ● ৯ এপ্রিল ২০১৯


খুব দ্রুত ‘নগর অ্যাপস’ আসছে: ডিএনসিসি মেয়র

ঢাকা সাগরকন্যা অফিস॥

ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র আতিকুল ইসলাম বলেছেন, আমি অভিযোগ বাক্স স্থাপন করেছি। কিন্তু মানুষ ভয় পায় যে, সে অভিযোগ করে আবার বিপদের সম্মুখীন হবে কিনা। এখানে আমরা পরিচয় গোপন রাখছি, তবুও আরো নিশ্চয়তা দিতে দ্রুত নগর অ্যাপস আসছে। যেখানে সবাই নির্ভয়ে অভিযোগগুলো করবেন এবং আমরা তা বাস্তবায়ন করবো।
রাজধানীতে প্রতি বর্গ কিলোমিটারে ৪৯ হাজার মানুষ বসবাস করেন। তাদের সবার সমস্যা দূর করা যথেষ্ট কঠিন কাজ বলেও উল্লেখ করেন ডিএনসিসি মেয়র। মঙ্গলবার (৯ এপ্রিল) রাজধানীর আফতাব নগর এলাকায় পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা অভিযান উদ্বোধনকালে এ কথা বলেন মেয়র।
মালিবাগ থেকে প্রগতি সরণি পর্যন্ত সড়কটি হবে মডেল সড়ক। এই সড়কে উন্নত বিশ্বের মতো আধুনিক সব সুযোগ সুবিধা থাকবে। প্রধানমন্ত্রীর সরাসরি নির্দেশে পাইলট প্রকল্প হিসেবে এমন কাজ খুব দ্রুত বাস্তবায়ন করা হবে বলে জানান মেয়র। আফতাবনগরে নগরবাসীর সুবিধার্থে একটি ফুট ওভারব্রিজ স্থাপন করা হবে জানিয়ে মেয়র বলেন, এখানে শিক্ষার্থীরাসহ এলাকাবাসীদের অনেকেই রাস্তা পার হন। যে কারণে এখানে ফুট ওভারব্রিজ স্থাপন করা হবে। তবে সবাই জেব্রা ক্রসিং এবং ফুট ওভারব্রিজ ব্যবহার করবেন এই মানসিকতা নিয়ে রাস্তায় চলতে হবে। বিদেশে গেলে আমরা সব নির্দেশনা মেনে চলি। দেশে কেন তা মানবো না? এ সময় মেয়র বড় ভবনগুলোতে সিঁড়ির প্রতিবন্ধকতা দূর করার তাগিদ দেন।
রাজধানীর একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীসহ সংসদ সদস্য একেএম রহমত উল্লাহ, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব খায়রুল আলম সবুজ, এলাকার কাউন্সিলর ও অন্যান্য ব্যক্তিরা পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা অভিযানে অংশ নেন। অভিযানের উদ্বোধন শেষে রাজধানীতে বর্ষাকালের জলাবদ্ধতা দূর করতে ডিএনসিসি’র কর্মযজ্ঞ সম্পর্কে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে মেয়র বলেন, জলাবদ্ধতার বিষয়ে অনেক অভিযোগ আসে। বৃষ্টির জমাটবদ্ধ পানি খালের মাধ্যমেই সরে যাওয়ার কথা। কিন্তু খালে গিয়ে দেখা যায়, খাল ওয়াসার অন্তর্গত, খালের পাড় জেলা প্রশাসকের অন্তর্গত। এখানে সিটি করপোরেশন গিয়ে কি করবে? তারপরও জনগণের ভোগান্তির কথা ভেবে আমি নির্দেশনা দিয়েছি।
তিনি বলেন, বাজেট, সুযোগ-সুবিধাসহ অন্যান্য বিষয়াদি ভাবার সময় এখন না। জনগণের কষ্ট হচ্ছে সেটা আগে দূর করতে হবে। এক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট সরকারি সব প্রতিষ্ঠানকে একসঙ্গে কাজ করার আহ্বান জানান তিনি। তিনি বলেন, কালশীর মোড় থেকে মিরপুরের দিকে যে রাস্তাটা গেছে, সেই রাস্তাটায় দেখেছি অসহনীয় অবস্থা। সেখানে একটি সাংবাদিক খাল আছে, সেটি ওয়াসার আন্ডারে। আমরা ওয়াসাকে বলেছি, যদি সেটা ব্যবস্থা না করা হয় তাহলে আমাদের সিটি করপোরেশনের যত যন্ত্রপাতি আছে, এসব দিয়ে ওই খাল এবং খালের আশপাশে যেসবের জন্য জলাবদ্ধতা হচ্ছে, সেখানে আমি নিজে যাব, দিজে দাঁড়িয়ে থেকে ইমিডিয়েটলি সেটাকে সল্ভ করতে চাইব। মিরপুরে সাংবাদিক আবাসিক এলাকার পাশে কালশী খাল রক্ষণাবেক্ষণের জন্য দেয়াল তুলে ২২ ফিট চওড়া ড্রেন করে দেওয়া হয়েছিল। পুরবী-কালশী রোড থেকে ১১ নম্বর বাউনিয়া বাজার রোড কালভার্ট পর্যন্ত প্রায় আধা কিলোমিটার ওই খাল বর্জ্য আর বালিতে ভরাট হয়ে গেছে। কিছু অংশ চলে গেছে অবৈধ দখলে, ভরাট করে গড়ে তোলা হয়েছে স্থাপনা। পানি বের হওয়ার পথ বন্ধ থাকায় প্রতি বর্ষা মৌসুমে সিটি করপোরেশন ৫ নম্বর ওয়ার্ডে সৃষ্টি হয় জলাবদ্ধতা। ফলে ওই এলাকার কয়েক লাখ মানুষকে ভোগান্তি পোহাতে হয়। জনগণের অভিযোগ পাওয়ার পর সিটি করপোরেশন বসে থাকতে পারে না মন্তব্য করে মেয়র বলেন, আজকে মঙ্গলবার সিটি করপোরেশনের ইঞ্জিনিয়ারিং ও বর্জ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগ সেখানে গেছে। তারা আমাকে রিপোর্ট দেবে, সে অনুসারে কাল-পরশুর ভেতরে অথবা দুই থেকে তিন দিনের মধ্যে আমি অ্যাকশন নেব।
রামচন্দ্রপুর খালসহ আশপাশের কয়েকটি খাল ভরাট হয়ে যাওয়ায় মিরপুর এলাকায় জলাবদ্ধতা প্রকট আকার ধারণ করেছে বলে জানান মেয়র আতিকুল। তিনি বলেন, আমি বলেছি জনগণ যেখানে কষ্ট পাচ্ছে, সেখানে কে করবে না করবে, সেটা পরে ভাবার বিষয়। কোথা থেকে বাজেট পাব কি না পাব, পরে দেখার বিষয়। এখন বর্ষার সময় রাস্তা ডুবে যাচ্ছে, জনগণ যে কীভাবে কষ্ট পাচ্ছে, রিকশা, গাড়ি ডুবে যাচ্ছে, চলাচল করতে পারছে না, এর থেকে রেহেই পাওয়ার জন্য অবিলম্বে সিটি করপোরেশন ব্যবস্থা নেবে। জনগণের ভোগান্তি নিরসনে ওয়াসাসহ সংশ্লিষ্ট সব দপ্তরকে সিটি করপোরেশনের সঙ্গে এক হয়ে কাজ করার আহ্বান জানান মেয়র। নাগরিক সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে সমন্বয়হীনতা আছে কিনা- এ প্রশ্নের উত্তরে আতিক বলেন, সমন্বয়ের অভাব আমি বলব না। ওয়াসার দায়িত্ব আছে খালের পানির বিষয়ে। এখন আমি কোনো ধরনের সমন্বয়হীনতা চাই না। আমি সবাইকে নিয়ে দ্রুত কাজ করতে চাই। তিনি বলেন, যেসব ড্রেন ভরাট হয়ে গেছে সেগুলো দ্রুত পরিষ্কার করতে বলেছি। এগুলো এক দিনের সমস্যা না। বছরের পর বছর ধরে সমস্যা হয়ে আসছে। এগুলোর সমাধানও এক দিনে সম্ভব না। তবে আমাদের উদ্যোগের কোনো কমতি থাকবে না। রাজধানীর খাল পুনরুদ্ধারে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনার কথা তুলে ধরে উত্তরের মেয়র বলেন, এ বিষয়ে আমরা এলজিআরডির সঙ্গে কথা বলেছি।সিএস পরচা অনুসারে দেখে দেখে খালগুলো উদ্ধার করতে হবে। আমরা দেখছি কীভাবে নদীগুলো উদ্ধার করা হচ্ছে, আমি আশা করব, ঢাকার ভেতরে যেসব খাল আছে, প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া নির্দেশনা অনুসারে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় অনুরূপ অ্যাকশন নেবেন। ড্রেনকে ডাস্টবিন বানাবেন না জানিয়ে আতিকুল ইসলাম বলেন, ড্রেন পরিষ্কারের নির্দেশনাও দিয়ে দিয়েছি। ড্রেনগুলো ভরাট হয়ে গেছে। দীর্ঘদিন ধরে এগুলো ভরাট হয়েছে। একদিনে তা দূর করা যাবে না। তবে কাজ চলছে। বিভিন্ন খাল ভরাট হয়ে বাড়ি, দোকান, বাজার বসেছে। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশমত আমরা ঢাকার সব খাল ফিরিয়ে আনার ব্যবস্থা করছি। এলজিইডি মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে কথা হয়েছে। নদীর মতো করেই খাল উদ্ধার করা হবে। ড্রেনের ময়লা উঠিয়ে আবার ড্রেনের পাশেই রাখা হয়, এটা আমি বরদাসত করছি না। প্রতিদিনের ময়লা প্রতিদিন সরানোর বিষয়টিকে কিভাবে আধুনিক পদ্ধতিতে সমস্যা নিরসন করা যাবে সে বিষয়ে গুরুত্ব সহকারে দেখা হচ্ছে। তিনি বলেন, সবাই যদি দায়িত্ব নিয়ে যার যার জায়গা থেকে পরিষ্কার করে রাখি, তাহলে এই শহর একটি সুন্দর শহরে পরিণত হবে। শহরের যেসব ড্রেন আছে সেখানে আমরা কেউ কোনো ধরনের ময়লা-আবর্জনা ফেলব না। সবাইকে সচেতন হতে হবে, সচেতন করতে হবে। নিরাপদ শহরের পাশাপাশি সড়কের নিরাপত্তা নিশ্চিতের দাবিতে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের প্রশংসা করে মেয়র বলেন, ভবিষৎ প্রজন্ম আমাদের দেখিয়ে দিয়েছে কীভাবে দেশের সড়ক নিরাপদ করতে হবে। ইস্ট ওয়েস্ট ইউনিভার্সিটির শিক্ষার্থীরা রামপুরা ব্রিজের পাশে ডিআইটি সড়কে একটি ফুটব্রিজ করে দেওয়ার দাবি জানালে মেয়র বলেন, এই ফুটব্রিজ আমরা করে দেব। কিন্তু সবাই যেন সেখান দিয়ে রাস্তা পার হয় তা শিক্ষার্থীরা দেখাশোনা করেবেন বলে প্রত্যাশা করি। অন্যদের মধ্যে স্থানীয় সংসদ সদস্য একেএম রহমতউল্লাহ, বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর মোহাম্মদ ফরাসউদ্দিন, ইস্ট ওয়েস্ট ইউনিভার্সিটির উপাচার্য শহিদুল হাসান অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

এফএন/এমআর

বাংলাদেশ সময়: ১৪:৫০:২৪ ● ৪৯৪ বার পঠিত




পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)

আর্কাইভ