আমতলীতে প্রতিদ্বন্দি মেয়র প্রার্থীর বিরুদ্ধে আচরণবিধি লঙ্ঘণের অভিযোগ !

প্রথম পাতা » বরগুনা » আমতলীতে প্রতিদ্বন্দি মেয়র প্রার্থীর বিরুদ্ধে আচরণবিধি লঙ্ঘণের অভিযোগ !
মঙ্গলবার ● ২০ ফেব্রুয়ারী ২০২৪


আমতলীতে মেয়র প্রার্থীর বিরুদ্ধে প্রতিদ্বন্দি প্রার্থীর আচরণ বিধি লঙ্ঘণের অভিযোগ!

আমতলী (বরগুনা) সাগরন্যা প্রতিনিধি॥

আমতলী পৌরসভার সাধারণ নির্বাচনে মেয়র প্রার্থী বর্তমান মেয়র মতিয়ার রহমানের বিরুদ্ধে আরেক মেয়র প্রার্থী সাবেক মেয়র বীর মুক্তিযোদ্ধা নাজমুল আহসান খাঁন আচরণ বিধি লঙ্ঘন, ভোটারদের ভয়ভীতি প্রদর্শণ, সভা সমাবেশ করা ও উন্নয়ন মুলক কাজের মাধ্যমে ভোটারদের প্রভাবিত করার অভিযোগ এনে সংবাদ সম্মেলন করেছেন। মঙ্গলবার  সন্ধ্যায় আমতলী সাংবাদিক ইউনিয়ন কার্যালয়ে এ সংবাদ সম্মেলন করেছেন তিনি। বর্তমান মেয়র মতিয়ার রহমানের এমন কর্মকান্ডের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার জন্য নির্বাচন কমিশনসহ প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন নাজমুল আহসান।
লিখিত বক্তব্যে মেয়র প্রার্থী সাবেক মেয়র নাজমুল আহসান খাঁন বলেন, গত ২৩ ফেব্রুয়ারী আমতলী পৌরসভা নির্বাচনের তফসিল ঘোষনা করেছেন নির্বাচন কমিশন। নির্বাচনী আচরণ বিধিতে উল্লেখ আছে তফসিল ঘোষনার পরে বর্তমান মেয়র প্রার্থী হলে কোন উন্নয়ন মুলক কর্মকান্ডে অংশ নিতে পারবেন না। কিন্তু মেয়র প্রার্থী বর্তমান মেয়র মতিয়ার রহমান আচরণ বিধির তোয়াক্কা না করে নিজের ইচ্ছে মত বিভিন্ন উন্নয়ন মুলক কর্মকান্ড করে আসছেন। এ পর্যন্ত পৌরসভার বিভিন্ন ওয়ার্ডে টিউবওয়েল, পানির লাইন সংযোগ, রাস্তা ও ড্রেন নির্মাণ করছেন। নিয়ম বর্হিভুতভাবে তফসিল ঘোষনার পর থেকে এ পর্যন্ত ৭৯ লক্ষ টাকা পৌসভার ব্যাংক একাউন্ট থেকে উত্তোলণ করেছেন। তার পালিত কিশোর গ্যাংরা প্রতিনিয়ত মোটর সাইকেল শোডাউন দিয়ে ভোটারদের মধ্যে আতঙ্ক সৃষ্টি করছে। তার কিশোর গ্যাং বাহিনীর এমন কর্মকান্ডে ভোটাররা ভীত সন্তুস্ত। মেয়র প্রার্থী মতিয়ার রহমান গভীর রাতে কিশোর গ্যাং দিয়ে ভোটারদের তার বাসায় ডেকে এনে টাকা দিচ্ছে। যারা আসতে রাজি হচ্ছে না কিশোর গ্যাং ইসফাক আহম্মেদ ত্বোহা বিহারীসহ তার সহযোগীরা তাদের নানাভাবে হয়রানী করছে। তিনি আরো বলেন, মেয়র মতিয়ার রহমান আচরণ বিধি লঙ্ঘন করে বিভিন্ন স্থানে সভা সমাবেশ করেছে। অহরহ কালো টাকা ও পেশী শক্তি দিয়ে ভোটারদের প্রভাবিত করছে। রাতে ভোটারদের তার বাসায় ডেকে এনে ভোটার আইডি কার্ড রেখে টাকা দিচ্ছে। মতিয়ার রহমানের এমন কার্যক্রম বন্ধ না করলে সুষ্ঠু নির্বাচনের পরিবেশ চরমভাবে বিঘিœত হবে। সংখ্যালঘু পরিবারের মধ্যে আতঙ্ক সৃষ্টি করতে গত ১৭ ফেব্রুয়ারী মেয়র মতিয়ার রহমান তার সমর্থক ধীরাজ কুমার বিশ্বাসকে তার লোকজন দিয়ে মারধর করেছে। পরে আমার সমর্থকদের হাতে লাঞ্ছিত হয়েছে বলে অপপ্রচার চালাচ্ছে। ওই ঘটনার সঙ্গে আমার ও আমার কোন সমর্থকদের সংশ্লিষ্টতা নেই। মেয়র প্রার্থী মতিয়ার রহমানের এমন কর্মকান্ডে আইনগত ব্যবস্থা নিতে নির্বাচন কমিশনসহ প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন তিনি। এ সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিল পৌর আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক জিএম মুছা, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগ সভাপতি জাহিদুল ইসলাম মিঠু মৃধা ও আওয়ামীলীগ নেতা হুমায়ুন কবির হাওলাদার প্রমুখ।
এ বিষয়ে মেয়র প্রার্থী মতিয়ার রহমান বলেন, মেয়র প্রার্থী নাজমুল আহসান খাঁন বিভিন্ন ভাবে আচরণ বিধি লঙ্ঘন করছে। এনিয়ে আমি বিভিন্ন দফতরে অভিযোগ দিয়েছি। এতে ক্ষুব্ধ হয়ে আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা অপপ্রচার চালাচ্ছেন।
বরগুনা জেলা নির্বাচন অফিসার ও রিটানিং কর্মকর্তা আব্দুল হাই আল হাদী বলেন, বরগুনা জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারসহ সর্ব স্তরের  কর্মকর্তা নিয়ে বৈঠক হয়েছে। প্রমাণ সাপেক্ষে যেকোন প্রার্থীর প্রার্থীতা বাতিলসহ কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 

এমএইচকে/এমআর

বাংলাদেশ সময়: ২১:৩০:০৬ ● ৪৬ বার পঠিত




পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)

আর্কাইভ