দুমকিতে গৃহবধুর অগ্নিদগ্ধে মৃত্যু, স্বামী-ননদ গ্রেফতার

প্রথম পাতা » পটুয়াখালী » দুমকিতে গৃহবধুর অগ্নিদগ্ধে মৃত্যু, স্বামী-ননদ গ্রেফতার
সোমবার ● ২৩ জানুয়ারী ২০২৩


দুমকিতে গৃহবধুর অগ্নিদগ্ধে মৃত্যু, স্বামী-ননদ গ্রেফতার

দুমকি(পটুয়াখালী) সাগরকন্যা প্রতিনিধি॥

পটুয়াখালীর দুমকিতে মুন্নি আক্তার (২৬) নামের ২সন্তানের জননী অগ্নিদগ্ধে নিহতের ১৫দিন পরে নিয়মিত হত্যা মামলায় অভিযুক্ত স্বামী মনিরুল ইসলাম ওরফে লিটন সর্দ্দার (৪৭) ও ননদ ময়ুরী বেগমকে(২৫) আটক করেছে পুলিশ।
গত রবিবার রাতে উপজেলার শ্রীরামপুর ইউনিয়নের তালুকদারের হাট এলাকার গ্রামের বাড়ি থেকে ননদ ময়ুরী বেগমকে এবং ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার সরাইল থানার শাহবাজপুর এলাকার হামদু মিয়ার বাড়ি থেকে মনিরুল ইসলাম ওরফে লিটন সর্দারকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। মামলার অপর ২আসামী দেবর রিপণ সর্দার ও ননদ সালমা বেগম পালাতক রয়েছে।
পুলিশ ও মামলার অভিযোগ সূত্রে জানাযায়, গত (৩ জানুয়ারি) দুপুরে উপজেলার শ্রীরামপুর ইউনিয়নের তালুকদারের বাজার এলাকার গাড়ী চালক মনিরুল ইসলাম ওরফে লিটন সর্দারের স্ত্রী মুন্নি আক্তারের (২৬) রহস্যজনক অগ্নিদগ্ধে মুমুর্ষাবস্থায় উপজেলা হাসপাতাল হয়ে বরিশাল শেরে-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে তার অবস্থার অবনতি ঘটলে পরের দিন ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসাপাতালের বার্ণ ইউনিটে স্থানান্তর করার পর ৬জানুয়ারি তার মৃত্যু ঘটে। ময়না তদন্তের পর নিহতের লাশ ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার সরাইল থানার শাহবাজপুর এলাকায় বাবা বাড়িতে দাফন করা হয়।
এঘটনায় পারিবারিক কলহে গায়ে আগুন দিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা বলে প্রচার করছিল স্বামী লিটন সর্দার ও তার পরিবার। অপর দিকে নিহতের বড়ভাই হামদু মিয়া তার বোনকে গায়ে প্রেট্রোল ঢেলে পুড়িয়ে হত্যার অভিযোগে স্বামী লিটন সর্দার, দেবর রিপন সর্দার, ২ননদ সালমা বেগম ও ময়ুরী বেগমকে আসামী করে গত ১৮জানুয়ারি দুমকি থানায় নিয়মিত হত্যা মামলাটি দায়ের করেন।
দুমকি থানার অফিসার ইনচার্জ মো: আবদুস সালাম আসামী গ্রেফতারের সত্যতা স্বীকার করে জানান, মামলার তদন্তকর্মকর্তা এসআই আবুল কালাম সরাইল থেকে গ্রেফতারকৃত আসামি লিটন সর্দারকে নিয়ে দুমকির পথে রয়েছে। অপর আসামী ময়ুরীকে সোমবার দুপুরে কোর্টে সোপর্দ্দ করা হয়েছে। এজাহার নামীয় অপর আসামীদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে বলে জানিয়েছেন।

এমআর

বাংলাদেশ সময়: ২৩:১১:৪২ ● ২০ বার পঠিত




পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)

আর্কাইভ