পায়রায় বিদ্যুৎকেন্দ্র ও ভূমি অধিগ্রহন কর্মকর্তা-কর্মচারী অবরুদ্ধ, হামলায় আহত-১২

প্রথম পাতা » পায়রা বন্দর » পায়রায় বিদ্যুৎকেন্দ্র ও ভূমি অধিগ্রহন কর্মকর্তা-কর্মচারী অবরুদ্ধ, হামলায় আহত-১২
মঙ্গলবার ● ৯ এপ্রিল ২০১৯


 

  1. কলাপাড়ায় বিদ্যুৎকেন্দ্র ও ভূমি অধিগ্রহন কর্মকর্তা-কর্মচারী অবরুদ্ধ, হামলায় আহত-১২
  2. কলাপাড়া (পটুয়াখালী) সাগরকন্যা অফিস॥
  3. বিদ্যুত উৎপাদন কেন্দ্র নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠান আশুগঞ্জ কোম্পানির ও পটুয়াখালী ভূমি অধিগ্রহণ অফিসের ১২ কর্মকর্তা কর্মচারীর ওপর সন্ত্রাসী হামলা চালানো হয়েছে। আহতরা হচ্ছেন আশুগঞ্জ কোম্পানির নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আশরাফ উদ্দিন, উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী গোলাম রব্বানী, সহকারী প্রকৌশলী রাকিবুল ইসলাম, এমএলএসএস আল-আমিন, গাড়ির চালক খায়রুল ইসলাম, ভূমি অধিগ্রহণ অফিসের সিনিয়র সার্ভেয়ার ফজলুর রহমান, সার্র্ভেয়ার মনিরুল আহসান, মো. খোকন, মজিবর রহমান, আসাদুল ইসলাম, নজরুল ইসলাম ও আব্দুল গফ্ফার। এর মধ্যে গুরুতর আহত ফজলুর রহমান ও নির্বাহী প্রকৌশলী আশরাফ উদ্দিনকে পটুয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বাকিদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। কলাপাড়ার ধানখালী ইউনিয়নের পাঁচজুনিয়া গ্রামে মঙ্গলবার দুপুরে প্রায় অর্ধশত মানুষ লাঠিসোটা নিয়ে এ হামলা চালায়। বিক্ষুব্ধরা ওই কর্মকর্তাদের মারধর করে প্রায় এক কিলোমিটার দুরে নিয়ে অবরুদ্ধ করে রাখে। প্রায় এক ঘন্টা পরে কলাপাড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) একদল পুলিশ নিয়ে উদ্ধার করেন। আশুগঞ্জ বিদ্যুত উৎপাদন কেন্দ্রের নির্বাহী প্রকৌশলী আশরাফ উদ্দিন জানান, তারা সকাল ১০টায় জমি অধিগ্রহনকৃত এলাকায় ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের বাড়িঘর ও গাছপালার ক্ষতিপুরন নিরুপন করছিলেন। হঠাৎ করে ১২ টার দিকে এলাকার শানু মেম্বারের (সাবেক) নেতৃত্বে তুহিন মাস্টার, আব্দুল মান্নান, জয়নাল, সজল ও মিজানসহ অর্ধশত লোক লাঠিসোটা নিয়ে তাঁদের ওপর অতর্কিত হামলা চালায়। তাদের মারধর লাঠিপেটা করা হয়। সেখান ত্যাগে বাধ্য করা হয়। এমনকি প্রায় এক কিমি দুরে নিয়ে ঘিরে রাখা হয়। এ ঘটনায় কলাপাড়া থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে। অভিযুক্ত শানু মেম্বার জানান, যা করেছে জনগণ। তবে হামলা নয়, জনগণ বাধা দিয়েছে। তিনি এও বলেন, বসতভিটাসহ কৃজি জমিতে কোন বিদ্যুতপ্লান্ট করার নিয়ম নেই। তারা (আশুগঞ্জ) গায়ের জোরে, ডিসি অফিসের পারমিশন ছাড়া জমি মাপজোক শুরু করলে জনগণ বাধা দেয়। কলাপাড়া থানার ওসি মো. মনিরুজ্জামান জানান, খবর শোনার সঙ্গে সঙ্গে ঘটনাস্থলে গিয়ে ক্ষুব্ধ গ্রামবাসীর কবল থেকে বিদ্যুত উৎপাদনকারী সংস্থা ও এলএওএর কর্মকর্তাদের উদ্ধার করেছেন। অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে। সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও কলাপাড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) অনুপ দাশ জানান, তিনি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। উর্ধতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করেছেন। এখন পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে। উল্লেখ্য আশুগঞ্জ পাওয়ার কোম্পানি কলাপাড়ায় ১৩২০ মেগাওয়াট বিদ্যুত প্লান্ট নির্মাণে ধানখালী ও চম্পাপুর ইউনিয়নের চারটি মৌজা থেকে ৯৩০ একর জমি অধিগ্রহণ প্রক্রিয়া চুড়ান্ত করেছে। এরা এখন পরিমাপ শেষে ক্ষতিগ্রস্তদের তিনগুন ক্ষতিপুরন প্রদানের কাজ শুরু করেছেন বলে সংশ্লিষ্ট সুত্রে জানা গেছে।
  4. এমইউএম/এমআর

বাংলাদেশ সময়: ১৫:২৩:২৭ ● ৮৬৪ বার পঠিত




পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)

আর্কাইভ