গৌরনদীতে ভুল চিকিৎসায় প্রসূতি ও নবজাতকের মৃত্যু’র অভিযোগ!

প্রথম পাতা » বরিশাল » গৌরনদীতে ভুল চিকিৎসায় প্রসূতি ও নবজাতকের মৃত্যু’র অভিযোগ!
বৃহস্পতিবার ● ৪ জুলাই ২০২৪


গৌরনদীতে ভুল চিকিৎসায় প্রসূতি ও নবজাতকের মৃত্যু’র অভিযোগ!

গৌরনদী (বরিশাল) সাগরকন্যা প্রতিনিধি॥

বরিশালের গৌরনদীতে সিজারিয়ান অপারেশনের সময়  ভূল চিকিৎসায় প্রসূতি নাজমুন নাহার (২৫) ও মেয় নবজাতক  (কন্যা সন্তান) মারা যাওয়ার অভিযোগ উঠেছে এমবিবিএস ডাঃ মুসলিমা জাহান ঐসি’র বিরুদ্ধে। বুধবার দুপুরে উপজেলার শরিকল বন্দরস্থ হেলথ কেয়ার ক্লিনিক এন্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারে সিজারিয়ান অপারেশনের সময় এ ঘটনা ঘটে। নিহত প্রসূতি মা বাবুগঞ্জ উপজেলার জাহাঙ্গীরনগর ইউনিয়নের উত্তর চরভুতেরদিয়া গ্রামের আমিনুল ইসলামের স্ত্রী ও একই ইউনিয়নের ব্রাক্ষ্মনদিয়া গ্রামের শাহজাহান হাওলাদারের মেয়ে। বিষয়টি ধামাচাপা দেওয়ার জন্য ক্ষিনিক কর্তৃপক্ষ মরিয়া হয়ে মাঠে নামার অভিযোগ উঠেছে।
নিহতের ননদ আসমা বেগম মুঠোফোনে জানান, শরিকল হেলথ কেয়ার ক্লিনিকের এমবিবিএস ডাঃ মুসলিমা জাহান ঐসি বুদবার দুপুরে তার প্রসূতি ভাবির (নাহার) সিজায় করেন। সিজারের সময় মেয়ে নবজাতকের মৃত্যুর খবর জানায় ক্লিনিক কর্তৃপক্ষ। বিষয়টি তাদের পরিবারের সদস্যরা মেনে নেয়। সিজারের পর ওই ডাক্তার একবার বলেছে তিন ব্যাগ ব্লাড লাগবে। এর কিছুক্ষন পর বলেছে পাঁচ ব্যাগ ব্লাড লাগবে। এরপর বলেন আপনারা রোগী এখান থেকে নিয়ে যান। বুধবার বিকাল সাড়ে ৩টার দিকে প্রসূতি ভাবি অসুস্থ হয়ে পড়লে ক্লিনিক কর্তপক্ষ রোগীকে (নাহার) বরিশাল আরিফ মেমোরিয়াল হাসপাতালে পাঠিয়ে দেয়। সেখান থেকে বরিশাল শেরেবাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যেতে বলে। এরপর শেচাচিম হাসপাতালে ওইদিন সন্ধ্যায় নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক ভাবিকে (নাহার) মৃত ঘোষণা করেন। ক্লিনিক কর্তপক্ষের অবহেলায় ও সিজারিয়ান অপারেশনের সময় ডাক্তারের ভূল চিকিৎসায় প্রসূতি ভাবির  (নাহার) ও মেয়ে নবজাতকের মৃত্যু হয়েছে। এ বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য দিতে অনীহা প্রকাশ করেন নিহতের পরিবার। পরবর্তীতে ক্লিনিক কর্তৃপক্ষের সাথে ম্যানেজ হওয়ার কথা স্বীকার করেন নিহতের ভাই আসলাম হাওলাদার।
এ ব্যাপারে বক্তব্যের জন্য ক্লিনিকের অভিযুক্ত ডাঃ মুসলিমা জাহান ঐসি’র ব্যবহৃত মুঠোফোনে একাধিকবার কল করা হলে তিনি  ফোন রিসিভ করেননি।
তবে ক্লিনিকের অংশিদার সুমন হোসেন জানান, ক্লিনিক কর্তৃপক্ষ প্রসূতিকে ভর্তি করতে চায়নি। তার (প্রসূতির) স্বজনদের অনুরোধে ভর্তির পর সিজার করা হয়েছে। তবে, রোগির স্বজনদের ম্যানেজ করার বিষয়টি তিনি অস্বীকার করেন।
উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ মো. মনিরুজ্জামান জানান, এ ব্যাপারে খোঁজখবর নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

 

 

 

এএসআর/এমআর

বাংলাদেশ সময়: ২১:৩৯:২৮ ● ৩৮ বার পঠিত




পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)

আর্কাইভ