কুয়াকাটায় দখল সন্ত্রাস থামানো জরুরী
হোমপেজ » সম্পাদকীয় » কুয়াকাটায় দখল সন্ত্রাস থামানো জরুরী


মঙ্গলবার, ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৮

এই ছবিটি প্রতীকী
কুয়াকাটায় সরকারী জায়গা দখল করে স্থাপনা নির্মাণের খবর পুরানো। এটি অনেকটা গা সওয়া হয়ে গেছে। কিন্তু এবারের খবর হচ্ছে খালের কোল ঘেষে নয়, খালের মাঝখানে ঘর তুলে দখল নেয়া হয়েছে কুয়াকাটা পৌরসভার ৩নং ওয়ার্ডের খাল। পৌরসভার প্রাণকেন্দ্রে অবস্থিত এ খালটির স্বাভাবিক পানি চলাচলে বাঁধা সৃষ্টি করার কাজটি হাতে নেয়ার ফলে আসন্ন বর্ষা মৌসুমে কুয়াকাটা পৌরসভার অভ্যন্তরের পানি নিষ্কাশন হতে না পেরে পৌরবাসীর জলমগ্ন হয়ে থাকার প্রবল আশঙ্কা থেকেই যাচ্ছে। সেই সাথে ইতোমধ্যেই পৌরসভার ৩ ও ৭ নং ওয়ার্ডে সামান্য বৃষ্টি হলেই শত শত পরিবার ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের মানুষ জলাবদ্ধতার শিকার হচ্ছেন। আসন্ন বর্ষায় এবার দুই ওয়ার্ড নয়, একাধিক ওয়ার্ডে ব্যাপক জলাবদ্ধতা দেখা দিতে পারে।
গত ১২ ফেব্রুয়ারি ‘কুয়াকাটা পৌরসভার খালে ঘর’ শীর্ষক একটি খবর জনপ্রিয় অনলাই সাগরকন্যা নিউজি পোর্টালে প্রকাশ পায়। সেখানে বলা হয়েছে, দখলের মহাপরিকল্পনা নিয়ে কুয়াকাটা পৌর এলাকার খাল দখল করে ঘর তোলা হয়েছে। যে খালটিতে এখনও দুই-তিন ফুট পানি রয়েছে। কুয়াকাটা ঘাটলা কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের দক্ষিণ দিকে পশ্চিমমুখী এই খালটির অবস্থান। সরাসরি খালটি অনেক দূর পর্যন্ত চোখে দেখা যায়। রিপোর্টে বলা হয়েছে, বিএস জরীপেও সরকারি এক নম্বর খাস খতিয়ানের খাল শ্রেণিভূক্ত খালটির দাগ নম্বর ৩১৭৬, এসএ দাগ নম্বর ৫৪৩৮। আয়তন ওই দাগে ৩৪ শতক। যার বর্তমান মূল্য উল্লেখ করা হয়েছে অন্তত দুই কোটি টাকা।
কুয়াকাটা পৌরসভার প্রাণকেন্দ্রে এই খাস খালটির অবস্থান। খালটি পৌরসভার তিন নম্বর ওয়ার্ডে অবস্থিত। বর্তমানে খালটি দখল প্রক্রিয়া চলছে। এক শীর্ষ প্রভাবশালী টেস্ট কেস হিসেবে ওই খালের মাঝখানে একটি টিনের ঘর তুলে দখল নিয়েছে। এভাবে বন্ধ হয়ে যাচ্ছে স্বাভাবিক পানি চলাচল।

স্থানীয় মানুষের বক্তব্য অনুযায়ী, প্রথমে ছোট্ট স্থাপনা তোলার পরে ক্রমশ এটির ধরণ পাল্টে একসময় সেমি পাকা, তারপর বহুতল ভবন তোলা হবে। তখন এসব উচ্ছেদ জটিল হয়ে যাবে। একই সঙ্গে নবগঠিত কুয়াকাটা পৌরসভার জলাবদ্ধতা নিরসনের সুযোগ হারাবে। পাশাপাশি বেহাত হয়ে যাওয়ার শঙ্কা থেকে প্রকট হচ্ছে বিপুল অঙ্কের খাস জমি।
পটুয়াখালী জেলা প্রশাসন দ্রুত খালটি দখলমুক্ত করার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিবেন বলে আমরা আশা করছি


বাংলাদেশ সময়: ০৩:৫৭:২৩ পিএম | ১৩৪ বার পঠিত


পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)

পুরনো খবর দেখতে:



---

আরো পড়ুন...